ব্রেকিং নিউজ:
অঙ্গ সংযোজনে অভাবনীয় সাফল্য আমেরিকার গবেষকদের
নিউজ ডেস্ক    সেপ্টেম্বর ১০, ২০১২, সোমবার,     ০৪:২০:৩৯

 

চিকিৎসা বিজ্ঞানে যুগান্তকারী সব উন্নয়নের কাজ করছেন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটসের গবেষকরা। গবেষকরা বলেছেন মানবদেহে কৃত্রিম অঙ্গস্থাপনের পরিবর্তে গবেষণাগারে পেশীকলা ও দেহের বিভিন্ন অঙ্গ গড়ে তোলার কাজে সফলতা পেয়েছেন তারা। আফগান যুদ্ধে আহত মার্কিন সেনাদের চিকিৎসায় এ প্রক্রিয়া কাজে লাগানো হচ্ছে।
ঘরে ফিরতে শুরু করেছে আফগানিস্তানে থাকা মার্কিন সেনারা। ২০০১ সালে শুরু হওয়া সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে প্রান দিয়েছে হাজারো সেনা। আর বেঁচে থাকাদের মধ্যে যারা আহত তাদের অনেকেই অঙ্গ হারিয়ে অচল।
যুদ্ধে অঙ্গ হারানো এই মার্কিন সেনাদের উন্নত চিকিৎসায় এগিয়ে এসেছে ম্যাসাচুসেটসের গবেষকরা। কৃত্রিম অঙ্গের পরিবর্তে অন্য প্রানীর কোষ দিয়ে মানবদেহে অঙ্গ সংযোজনে কাজ করছেন তারা।
পিটসবার্গ ইউনিভার্সিটি গবেষক ড.স্টিভ বেডিলাক জানান, ‘প্রানীর কোষ দিয়ে গঠিত অঙ্গটি ক্ষত স্থানে জুড়ে দেয়া হয়। এ প্রক্রিয়ায় শুধু ক্ষতস্থানটি পুরণ হয়, এমন নয় সমাস্যাটিও নিরাময় হয়।’
এদিকে কৃত্রিম অঙ্গ ঋতু পরিবর্তনে চামড়ায় নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করায় এটিকে চিকিৎসা ক্ষেত্রে যুগান্তকারী উন্নয়ন হিসেবে দেখছেন গবেষকরা।
তারা এ প্রক্রিয়াটির নাম দিয়েছেন 'এক্সট্রাসেলুলার মেট্রিক্স' বা ইসিএম। ভেড়া বা শুকুরের দেহ থেকে কোষ নিয়ে নির্ধারিত ল্যাব ডিশে রাখা হয়। ল্যাব ডিশে আকার নেয়ার পর এটিকে প্রতিষ্থাপন করা হয় ইদুরের দেহে। তার দেহে প্রতিস্থাপিত কোমলস্থিটি পূর্ণাঙ্গ রুপ নিতে সময় নেয় মাত্র দু'সপ্তাহ। এ প্রক্রিয়ায় এখন পর্যন্ত সাফল্য হারিয়ে যাওয়া মাংসপেশী সংযোজন।
রোনাল্ড স্ট্র্যাং নামের একজন আহত মার্কিন সেনার দেহে এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে। রোনাল্ড জানিয়েছে, ‘অপারেশনের একসপ্তাহ পরই আমি সম্পুর্ন সুস্থ। সবচে বড় বিষয় হচ্ছে আমি দৌড়াতে পারছি।’ গবেষক ও চিকিৎসকরা আশা করছেন এ বছরই সম্ভব হবে ইদুরের দেহে বেড়ে উঠা কান মানবদেহে প্রতিস্থাপন। তবে অপেক্ষা করতে হবে যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও চিকিৎসা বিভাগের আনুষ্ঠানিক অনুমোদনের।
এ.এন/এস.এম.বি/০৪.১৫



বিভাগ: বিশ্বযোগ   দেখা হয়েছে ৬০৫ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :