ব্রেকিং নিউজ:
বিলিয়নিয়ার কনটেস্টে রুপ নিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন
নিউজ ডেস্ক    সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১২, শনিবার,     ১১:২৪:০০

 

যুক্তরাষ্ট্রের ২০১২ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী ব্যয় ধরা হয়েছে অন্তত ১১ বিলিয়ন ডলার। ফেডারেল ইলেকশন কমিশনের হিসেব অনুযায়ী এবার ব্যয়ের সব রেকর্ড ভাঙ্গতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন। তবে নির্বাচনী ব্যয়ের কারনে গণতন্ত্রে বিরুপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।
যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে এখন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের হাওয়া বইছে। ৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। রিপাবলিকান পার্টির মিট রমনি লড়ছেন ডেমোক্রাট প্রার্থী প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সাথে। যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে চলছে জোর প্রচারণা।
আগামীর আমেরিকা গড়ার স্লোগান নিয়ে দ্বিতীয় মেয়াদে হোয়াইট হাউজে থাকার সুযোগ চান ডেমোক্রেট পার্থী এবং বর্তমান প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। যদিও পরিবর্তনের কথা বলে ক্ষমতায় এসে অর্থনীতির চাকাকে সচল করতে পারেননি তিনি। অন্যদিকে অর্থনৈতিক দূরাবস্থার জন্য ওবামাকে দায়ী করে ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন রিপাবলিকান প্রার্থী মিট রমনি। আর ভোটের মাঠেও ব্যয় করে যাচ্ছেন বিপুল অর্থ।
প্রার্থীদের নানান আশ্বাস আর অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের মধ্যেই আলোচিত হচ্ছে নির্বাচনী ব্যয়ের বিষয়টি। দুই প্রার্থীর প্রচারণায় ব্যয় ধরা হচ্ছে ১১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। শিল্পপতিরাও ঘোষণা দিয়েই তাদের পছন্দের প্রার্থীকে আর্থিক সহায়তা করছেন। ফলে মার্কিন এই নির্বাচনকে ধরা হচ্ছে বিলিয়নিয়ার কনটেস্ট হিসেবে। রাজনীতিতে ব্যবসায়ীদের এমন উপস্থিতিতে নির্বাচনী প্রচারণায় ঢুকে পড়ছে কালো টাকা। বিশ্লেষকরা আরো বলছেন, ২০১০ সালে সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তের পর নির্বাচনী খাতে বিপুল অর্থ দেয়ার সুযোগ পাচ্ছেন কোটিপতি ব্যবসায়ীরা। ফলে কে হচ্ছেন প্রেসিডেন্ট তার অনেকখানিই নিয়ন্ত্রক এখন তারাই। মুক্ত বাজার অর্থনীতির কারনে ৪'শ কোটিপতি এখন নিয়ন্ত্রণ করছে ১'শ ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ভোটারের ভাগ্য।
এ.এন/এস.এম.বি/১১.০০
বিভাগ: বিশ্বযোগ   দেখা হয়েছে ৭৩০ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :