ব্রেকিং নিউজ:
LIVE TV
ডি-৮’র লক্ষ্য অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও দারিদ্র্য হ্রাস
নিউজ ডেস্ক    অক্টোবর ১০, ২০১২, বুধবার,     ০৫:৪০:১১

 

অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ডি-৮ সদস্য রাষ্ট্রগুলোর শ্রমবাজার পরস্পরের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়ার তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার রূপসী বাংলা হোটেলে শিল্প সহযোগিতা বিষয়ক ডি-৮ মন্ত্রী পর্যায়ের তৃতীয় সম্মেলন উদ্বোধন করে এ কথা বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈশ্বিক ও জাতীয় লক্ষ্য অর্জনে অধিকতর নিবিড়ভাবে কাজ করার প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, জনগণের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও দারিদ্র্য হ্রাস করা ডি-৮ ভুক্ত সরকারগুলোর অন্যতম দায়িত্ব।
মিশর, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, মালয়শিয়া, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, তুরস্ক আর বাংলাদেশ মিলে ডি-৮ এর জোট।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত ১৫ বছরে বাণিজ্য পরিকাঠামো সৃষ্টিতে যথেষ্ট অগ্রগতি হলেও অগ্রাধিকারভিত্তিক বাণিজ্য চুক্তি এখনও কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। তিনি ডি-৮ ভুক্ত দেশগুলোকে এদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যগুলো (এমডিজি) বাস্তবায়নের সময়সীমার শেষ প্রান্তে উপনীত হয়েছি। এর কিছু ক্ষেত্রে সাফল্য সত্ত্বেও সহস্রাব্দের সব লক্ষের ক্ষেত্রে আমাদের আরো সন্তোষজনক অগ্রগতি অর্জন করা প্রয়োজন। এজন্য বৈশ্বিক ও জাতীয় উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে আমাদের সহযোগিতা অধিকতর সম্প্রসারণ করতে হবে।’
বিশ্বায়নের ফলে অর্থনৈতিক সাফল্য অর্জন একটি চ্যালেঞ্জ-এ কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ডি-৮ সদস্য রাষ্ট্রগুলো পরস্পরের স্বার্থরক্ষায় কাজ করলে এ সমস্যা মোকাবেলা করে অর্থনৈতিক মুক্তি সম্ভব। তিনি একই সাথে যে কোনো ধরনের চরমপন্থাকে প্রশ্রয় না দেওয়ার নীতি গ্রহনেরও আহ্বান জানান
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বহুপাক্ষিক প্রতিষ্ঠানগুলো উন্নত দেশগুলোর স্বার্থরক্ষায় বেশি তৎপর। এ পরিস্থিতিতে অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কোঅপারেশনের (ওআইসি) সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে ডি-এইট দেশগুলোর সম্পর্ক আরো জোরদার করা প্রয়োজন বলেও মন্তব্য করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।
শেখ হাসিনা বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিশ্চিত করতে শিল্পখাতে অগ্রগতি অর্জন জরুরি। এ খাতে বাংলাদেশসহ সদস্য দেশগুলোর ধারাবাহিক অগ্রগতি পরিলক্ষিত হলেও জ্বালানি নিরাপত্তা নিয়ে আরও ভাবতে হবে।
ডি-৮কে এক চমৎকার আন্তঃরাষ্ট্রীয় সংস্থা হিসেবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সদস্য রাষ্ট্রগুলোর অভিন্ন মূল্যবোধ ও সংস্কৃতিই ডি-৮ এর প্রাণশক্তি। বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ভূ-রাজনৈতিক অঞ্চলে অবস্থিত হওয়ায় এই সংগঠন এশিয়া, আফ্রিকা এবং ইউরোপের মধ্যে সংযোগ হিসেবে কাজ করতে সক্ষম। এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর জন্য আমাদের আরও সচেষ্ট হতে হবে।’
সদস্য রাষ্ট্রগুলোর নাগরিকদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠিত এ সংগঠনে আন্তঃরাষ্ট্রীয় বাণিজ্য বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা বাণিজ্য সম্পর্কের ক্ষেত্রে বৈচিত্র্য ও নতুন সুযোগ সৃষ্টি করতে চাই।’
শিল্প মন্ত্রণালয় আয়োজিত তিন দিনের এই বৈঠকে শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে শিল্প প্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধুরী, ডি-৮ মহাসচিব ড. উইদি আগোস প্রাতিকতো ও শিল্প সচিব মো. মইনউদ্দিন আবদুল্লাহ এতে বক্তৃতা করেন।

এন. এম./ এম. এস।/ ২১.১৮
বিভাগ: অর্থযোগ   দেখা হয়েছে ১৫১৯ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :