ব্রেকিং নিউজ:
LIVE TV
গাড়ীর ইন্টেলিজেন্ট ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম নিয়ে কাজ করছে টয়োটা
নিউজ ডেস্ক    নভেম্বর ১৪, ২০১২, বুধবার,     ০২:১১:২১

 


ক্রেতা ধরে রাখতে গাড়ীর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে এখন কাজ করছে সব শীর্ষ গাড়ী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। এরই ধারাবাহিকতায় জাপানের টয়োটা প্রথমবারের মতো পরীক্ষা করলো ইন্টেলিজেন্ট ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম সংযোজিত গাড়ী।
চালক ও আরোহীদের নিরাপত্তা পুরোপুরি নিশ্চিত করতে না পারায় অনেকবার ভুগেছে টয়োটা। ব্রেকের সমস্যায় ২০১০ সালে ইউরোপ ও আমেরিকার বাজার থেকে প্রায় ৮৭ লাখ গাড়ি প্রত্যাহার করে প্রতিষ্ঠানটি। যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে দোষ স্বীকার করতে হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটির প্রধান আকিয়ো টয়োডাকে। জরিমানাও গুণতে হয়েছিলো কোটি কোটি ডলার। গত মাসেও আরেকটি সমস্যায় ৭ লাখের বেশি গাড়ি প্রত্যাহার করে প্রতিষ্ঠানটি। এখন চালকের নিরাপত্তার নতুন প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা করছে সেই টয়োটা।
সম্প্রতি জাপানে প্রদর্শিত হয়েছে টয়োটার ইন্টেলিজেন্ট ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম সংযোজিত নতুন গাড়ী। গাড়ীটি রাস্তায় স্থাপিত সেন্সর ও ট্রান্সমিটারের সাথে নিরাপত্তা নিয়ে তথ্য আদান-প্রদান করে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে সাবধান করবে চালককে।
আচমকা কোন গাড়ি সামনে থেকে দুর্ঘটনা ঘটাতে পারে। তাই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে টয়োটার এই গাড়িটি আগেই চালককে লালবাতি ও কৃত্রিম কণ্ঠস্বরের মাধ্যমে সাবধান করবে। এতে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা অনেক কমবে বলে দাবি করছে টয়োটা।
টয়োটা ইন্টেলিজেন্ট সিস্টেম প্ল্যানিং ডিভিশনের প্রকল্প ব্যবস্থাপক হিরোওকি কানেমিটসু বলছেন, ‘অর্ধেকেরও বেশি দুর্ঘটনা ঘটে যখন চালক বুঝতে পারে না। জানতে পারেনা কিংবা দেখতে পারে না যে সামনে থেকে কোন গাড়ি আসছে কিনা। তাই আমি মনে করি এই প্রযুক্তি দুর্ঘটনা প্রতিরোধ করবে।’
টয়োটার প্রধান প্রকৌশলী মরিটাকা ইয়োশিদা বলছেন, ‘আগে আমাদের হাতে এমন প্রযুক্তি ছিল না যা চালককে সম্ভাব্য দুর্ঘটনা থেকে সাবধান করবে। এখন যেটা জরুরি তা হলো নতুন প্রযুক্তির নির্ভরযোগ্যতা এবং কম খরচের বিষয়টি নিশ্চিত করা।’
ইউরোপ ও আমেরিকার নির্মাতারাও সাবধানি গাড়ী নিয়ে কাজ করছে। তাই বছরে ১ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন ইয়েন ব্যবসা করা জাপানি জায়ান্ট টয়োটাও পিছিয়ে থাকবেনা। ২০১৪ সালে এর সাবধানী গাড়ী পরীক্ষামূলকভাবে চলবে জাপানের রাস্তায়।
জে.এ/এস.এম.বি/০২.০০
বিভাগ: অর্থযোগ   দেখা হয়েছে ৮৭৮ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :