ব্রেকিং নিউজ:
LIVE TV
দুর্নীতির পূর্ণাঙ্গ তদন্ত ছাড়া পদ্মায় অর্থায়ন করবে না বিশ্বব্যাংক
নিউজ ডেস্ক    ডিসেম্বর ০৮, ২০১২, শনিবার,     ০৮:৫২:৪৫

 

পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন নির্ভর করবে দুর্নীতির পূর্ণাঙ্গ এবং স্বচ্ছ তদন্তের ওপর।প্রকল্পের দুর্নীতির তদন্ত পর্যবেক্ষণে আসা বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের দ্বিতীয় দফা বাংলাদেশ সফরের পর শনিবার এক বিবৃতিতে একথা জানিয়েছেন সংস্থাটির আবাসিক প্রতিনিধি এলেন গোল্ডস্টেইন।
বিবৃতিতে গোল্ডস্টেইন বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতি তদন্তের জন্য বিশ্বব্যাংকের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য-প্রমাণ দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক)দেয়া হয়েছে।দুদক যদি প্রাপ্ত এসব তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে দুর্নীতির পূর্ণাঙ্গ ও সুষ্ঠু তদন্ত করে, তবেই প্রকল্প বাস্তবায়নে বিশ্বব্যাংক এগিয়ে আসবে।
বিবৃতিতে গোল্ডস্টেইন আরো জানান,প্রথম ঢাকা সফরে বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ দল বাংলাদেশের আইন অনুসরণ করে দুর্নীতির পূর্ণাঙ্গ তদন্তের জন্য দুদককে তাগিদ দিয়েছিল। গত সপ্তাহে দ্বিতীয় দফা সফরে তারা বেশকিছু অমীমাংসিত বিষয় দেখতে পান, যার সুষ্ঠু ও পূর্ণাঙ্গ তদন্তের জন্য আবারও দুদককে তাগিদ দেয়া হয়েছে।
দুর্নীতির অভিযোগে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনকে মামলার আসামি না করার পক্ষে দুদকের অবস্থান নিয়ে বিশ্বব্যাংক প্যানেলের সঙ্গে দুদকের মতবিরোধ ঘটে। ফলে সমঝোতা ছাড়াই গত বুধবার লুই গ্যাব্রিয়েল মোরেনো ওকাম্পোর নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বিশেষজ্ঞ প্যানেল ফিরে যায়। এর তিন দিনের মাথায় বিশ্বব্যাংক থেকে এই বিবৃতি দেওয়া হলো।
দুর্নীতিতে জড়িত সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবার দাবিতে অনঢ় বিশ্বব্যাংক প্যানেলের অভিমত ছিলো, ‘দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের’ প্রমাণ দেবার পরও প্রভাবশালী অভিযুক্তদের বাদ দিয়ে দুদক শুধু মধ্যম সারির সাত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করছে, যা নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের পরিপন্থী।
সাবেক দুই মন্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগের যথেষ্ট দালিলিক প্রমাণ নেই-দুদকের এমন অবস্থানের প্রেক্ষিতে বিশেষজ্ঞ দল চেয়েছিলো তাদের সরবরাহ করা প্রমাণের ভিত্তিতে সবার বিরুদ্ধে মামলা করতে। এরপর অধিকতর তদন্ত করে সংশ্লিষ্টতা না পেলে মামলা থেকে অভিযুক্তদের বাদ দিতে।
এ ব্যাপারে সরকারের কাছ থেকে যথাযথ সাড়া না পাওয়ায় দুদকের সঙ্গে তাদের আলোচনা ভেঙে যায় বলে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়, যদিও দুদক তা অস্বীকার করেছিল।
এদিকে পদ্মা সেতু প্রকল্পে সহায়তার ব্যাপারে বিশ্বব্যাংকের বিবৃতিতে যুগপৎ বিস্ময় ও উষ্মা প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।
শনিবার সিলেটের জিন্দাবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘হঠাৎ করে দেয়া এ বিবৃতিতে আমি অবাক হয়েছি। দুদক সুষ্ঠুভাবেই কার্যক্রম পরিচালনা করছে। আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে কাজ করছে তারা। এ অবস্থায় বিশ্বব্যাংকে আকস্মিক এ বিবৃতিকে স্বাগত জানাতে পারছি না।’
বিবৃতিকে অগ্রহণযোগ্য ও বিভ্রান্তিকর আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন,দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ প্যানেল দু'দফা ঢাকা সফর করেছে। ফিরে গিয়ে বিশেষজ্ঞ প্যানেল কোনো মন্তব্য করার আগেই সংস্থাটির ঢাকা অফিস থেকে এমন বিবৃতি প্রকাশ করা কোন মতেই ন্যায়সঙ্গত নয়।

এম. এস./৮.৩৫
বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ৪৮২ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :