ব্রেকিং নিউজ:
তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হলেন শেখ হাসিনা
মাহবুব স্মারক    জানুয়ারী ১২, ২০১৪, রবিবার,     ১১:২৬:২৪

 

তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন শেখ হাসিনা। রোববার বেলা সাড়ে ৩টায় বঙ্গভবনে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন তিনি। পরে সাংবাদিকদের শেখ হাসিনা বলেন, ‘সরকারের পক্ষে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন পেতে কোন সমস্যা হবে না।’
আবারো জনগণের সেবা করার সুযোগ পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী হওয়া বড় কথা নয়। জনগণের জন্য কাজ করাই বড় কথা।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো চাপের কাছে মাথা নত করেন না তিনি- জাতীয় বা আন্তর্জাতিক চাপ,যাই হোক। কেননা দেশটা জনগণের। বিরোধী দল নির্বাচনে অংশ না নিয়ে গণতান্ত্রিক ধারা রক্ষায় সহযোগিতা করেনি।
শপথ অনুষ্ঠান শুরুর আগে থেকেই বঙ্গভবনের দরবার হল আমন্ত্রিত অতিথিদের উপস্থিতিতে কানায় কানায় ভরে ওঠে। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে আমন্ত্রণ জানালেও আসেননি তিনি। তবে সিএমএইচ থেকে শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।
শুরুতেই রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনাকে শপথ পড়ান। এরপর প্রধানমন্ত্রী শপথ নেন রাষ্ট্রের গোপনীয়তা রক্ষার। এরপর দলবেধে শপথ নেন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা ।
পরে সাংবাদিকদের সাথে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সবাই গণতন্ত্রের পথে থাকবেন, এটাই আমাদের আশা। গণতন্ত্র সুরক্ষায় যে পদক্ষেপগ্রহণ করা প্রয়োজন আমরা নিব। আমরা চাই বাংলাদেশে শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত হোক।
নির্বাচনের পর সংখ্যালঘু নির্যাতনের জন্য ক্ষোভ জানান তিনি। তিনি বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ও নৈরাজ্যের পরিবর্তে গণতন্ত্রের স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকুক এটাই তাদের প্রত্যাশা।
সরকার পরিচালনার ক্ষেত্রে বিএনপির সমর্থন চাইবেন কি-না? এ প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, সকলের সহযোগিতা চাই। যদিও বিএনপিকে বার বার আমন্ত্রণ জানানোর পরও নির্বাচনে না এসে তারা গণতান্ত্রিক ধারা বজায় রাখতে কোন সহযোগিতা করেনি।
তবে আবারো তিনি জনগণের স্বাভাবিক জীবনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিকারী ধ্বংসাত্মক কাজ বন্ধ করতে বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, যে কোনো আলোচনার আগে বিএনপিকে জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে হবে।
যুদ্ধাপরাধের বিচার সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুদ্ধাপরাধের বিচার চলছে। রায় হবে, তা কার্যকর হবে।
এছাড়াও, প্রয়োজনে ছিটমহল ও তিস্তার পানিবণ্টনের বিষয় নিয়ে ভারতের পশ্চিবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানান শেখ হাসিনা।
আগামী জুনের মধ্যে পদ্মাসেতুর মূল সেতুর কাজ শুরু হবে বলে বলে জানান শেখ হাসিনা।
শেখ হাসিনা দেশবাসীর দোয়া চেয়ে বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ হবে আর এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করবেন তারা।

মাহবুব স্মারক/ মাহবুব সাঈফ/ ১৬: ২৫
বিভাগ: দেশযোগ   দেখা হয়েছে ৯৩৮ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :