ব্রেকিং নিউজ:
বাড়ছে ভেজাল সার বিক্রি
ডলার মেহেদী    জুলাই ০৩, ২০১২, মঙ্গলবার,     ১০:৩৫:০৪

 

ভেজাল বা নিম্নমানের সারবিক্রি পরিমান প্রতিবছরই বাড়ছে। নিত্যনতুন কৌশলে সারে ভেজাল দেয়ার প্রবণতাও বাড়ছে। নানা সময়ে ভেজাল সারের বিক্রেতারা ধরা পড়লেও দুর্বল মামলার কারণে খুব সহজেই জামিনে বেরিয়ে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে। ছাড়া পেয়ে আবারো শুরু করছে পুরনো ব্যবসাই। ফলে নিয়ণ্ত্রণ করা যাচ্ছে না ভেজাল সারের ব্যবহার।
নিত্যনতুন কৌশলে সারে ভেজাল দেয়ার প্রবণতাও বাড়ছে।
মৃত্তিকা সম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট –এসআরডিআই এর তথ্য অনুসারে যেসব সার চিনতে ভুল হয় সেগুলোতেই ভেজাল থাকে বেশি। বিশেষ করে ইউরিয়া,এম ও পি,টি এস এস,এস এস পি- এ ধরণের সারগুলোই ভেজাল হয়ে থাকে।
সারে প্রয়োজনীয় উপাদান তো নেই বরং এমন সব ক্ষতিকর উপাদান মেশানো হচ্ছে যার ফলে এসব ব্যবহার করায় মানব শরীরেও নানা রোগ-সংক্রমন হচ্ছে বলে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।
এসআরডিআই এর সার পরীক্ষার সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে জানা যায় ভেজাল সারে সাধারণত পোড়া মবিল,রেড অক্সাইড,সালফেট, ইটের গুড়া,কাচের গুড়া এসব অপ্রয়োজনীয় উপাদান পাওয়া যায়।
সারে ভেজাল প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমামুল হক বলেন,চাহিদা অনুযায়ি সরবরাহ না থাকায় নিম্নমানের সার বিক্রি বেড়েই চলেছে।
আইন করেও ভেজাল সার নিয়োন্ত্রণ করা যাচ্ছেনা, ভেজাল সার উতপাদনকারীর বিরুদ্ধে কি কি পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে, এ বিষয় মৃত্তিকা গবেষনা উন্নয়ন সংস্থার প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা লুতফে আরা বেগম বলেন, ভেজাল সার খালি চোখে দেখে বোঝা যায়না, কৃষি কর্মকর্তারা যদি ভেজাল সার চেনার ব্যাপারে কৃষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়, তাহলে হয়তো ক্ষতির পরিমাণ কম হবে।

ডি.এম/এ.আর/১৭.২৭


বিভাগ: কৃষিযোগ   দেখা হয়েছে ২৭৪৮ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :