ব্রেকিং নিউজ:
LIVE TV
বিদ্যুতের পাইকারি দাম ২২% বাড়ানোর সুপারিশ বিইআরসির
মুজাহির রুমেন    জুলাই ১৬, ২০১২, সোমবার,     ১২:৪৫:২৬

 

পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম আবার বাড়ছে। বিদ্যুতের দাম ইউনিট প্রতি ২১ দশমিক ৮৯ শতাংশ বাড়ানোর সুপারিশ করেছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন-বিইআরসি।
সোমবার সকালে কমিশন কার্যালয়ে গণশুনানিতে পিডিবির ৫০ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব যাচাই করে এই সুপারিশ দেয় কমিশন।
গণশুনানিতে গ্রাহক সমিতি দাম না বাড়াতে কমিশনকে সুপারিশ করে। তারা বলেন, বিদ্যুৎ খাতে সরকার ভর্তুকি দিচ্ছে। এতে শিল্প-কারখানা সচল থাকায় দেশের অর্থনীতি গতিশীল রয়েছে। তাই এই খাতে ভর্তুকি দেয়া সরকারের জন্য লাভজনক। কিন্তু লাগাতার দাম বাড়ানোর ফলে বিদ্যুৎ ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। বর্তমানে পাইকারি বিদ্যুতের দাম রয়েছে, ইউনিট প্রতি ৪ টাকা ২ পয়সা। সর্বশেষ গত মার্চ মাসে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়।
২০১০ সালে বিদ্যুৎ সমস্যা মোকাবিলায় সরকার যখন তেল-ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি শুরু করে তখন লিটার প্রতি ফার্নেস অয়েলের দাম ছিল ২৬ টাকা। আর এখন ৬০ টাকা। ভর্তুকি বেড়েছে কয়েকগুন। ভর্তুকি কমিয়ে আনতে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি জরুরী বলে মনে করে পিডিবির চেয়ারম্যান এএসএম আলমগীর কবির।
বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ বাড়লেও দেশের অর্থনীতির চাকা সচল ছিল। মন্দার হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে। তাই ভর্তুকি সমস্যা সামাল দেয়ার জন্য জনগণের বিদ্যুতের দাম না বাড়িয়ে সরকারকে ভর্তুকি দেয়ার পক্ষে মত দেন ভোক্তা প্রতিনিধিরা।
পিডিবির প্রস্তাব পর্যবেক্ষণ করে কমিশনের কারিগরি কমিটি ২২ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। তবে শুনানির তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দাম নির্ধারন করবে বিইআরসি বলে জানালেন, এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সদস্য,ড. সেলিম মাহমুদ।
চলতি বছর এ নিয়ে তৃতীয় বারের মতো বিদ্যুতের দাম বাড়ছে। পিডিবির দাবি ৫০ শতাংশ দাম বাড়ালেও চলতি বছর তাদের ভর্তুকি দাড়াবে ৩০০ কোটি টাকা। আর দাম না বাড়ালে ভর্তুকি দিতে হবে সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা।

এম. আর./ এম. এস./ ২১.৪৫
বিভাগ: অর্থযোগ   দেখা হয়েছে ৬১৪ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :