ব্রেকিং নিউজ:
আর সাঁতরাবেন না মাইকেল ফেল্পস
খেলাযোগ ডেস্ক    আগষ্ট ০৫, ২০১২, রবিবার,     ০৪:৩৯:০৮

 

রাজার মতই সাঁতারকে বিদায় জানালেন মাইকেল ফেল্পস। লন্ডন অ্যাকুয়াটিক সেন্টারের মিডিয়া হলে পুলকে গুডবাই বলেন এই মার্কিন জলদানব।
এথেন্সে ছয়টি আর বেইজিংয়ে আটটি, মোট চৌদ্দটি অলিম্পিক সোনা জিতে লন্ডনে এসেছিলেন ফেল্পস। শুরুটা সামর্থ্য অনুযায়ী না হলেও ধীরে ধীরে খুঁজে পান নিজেকে। শেষ পর্যন্ত জেতেন চারটি সোনা আর দুটি রূপা জিতে এই অলিম্পিকেই ছাড়িয়ে গেছেন সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের জিমন্যাস্ট লারিসা লাতিনিনার ১৮টি অলিম্পিক পদকের রেকর্ড। ১৮টি সোনাসহ ফেল্পসের অলিম্পিক পদক এখন ২২। অবসরের ঘোষণা দেয়ার সময় ফেল্পস জানান, "সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, আমি নিজেকে সবসময় বলতাম ৩০ বছরের বেশি বয়সে সাঁতরাবোনা। যা করার এই বয়সের মধ্যেই করবো। আমি যদি আর তিন বছর পুলে থাকি আপনারা বলবেন আর একটা বছর থাকো। যখন আমার ক্যারিয়ারের দিকে ফিরে তাকাই, দেখতে পাই যা করতে চেয়েছি তা পেরেছি। এখানেই শেষ, সরে যাবার সময় হয়েছে।"
প্রথম তিন ইভেন্টের দুটিতে রুপা জিতলেও শেষের চারটিতেই সোনা জিতেছেন সর্বকালের সেরা এই সাঁতারু। তবে অলিম্পিকের মতো বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই ক্রীড়া আসরে আর পুলে ঝড় তুলতে দেখা যাবে না তাকে। শনিবার রাতে ৪০০ মিটার মিডলে রিলেতে সোনা জিতেই গুডবাই জানালেন অলিম্পিককে।
১৫ বছর বয়সে যখন সিডনী অলিম্পিকে অভিষেক হয় তখন ফেলপসকে কেউ না চিনলেও কোচ বব বাউম্যান ঠিকই চিনতে পেরেছিলেন। গুরুর সে ধারণা যে ভুল ছিলনা তা নিজেই প্রমাণ করেছেন ফেল্পস।
২০০৪ সালে অ্যাথেন্সে প্রথম সাঁতারু হিসেবে আটটি ইভেন্টে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছিলেন ফেলপস। সেবারই জিতে নেন ছয়টি সোনা। পরের আসর বসে চীনের বেইজিংয়ে, সেখানেও জিতেন আটটি সোনা। আর তখনই ভেঙ্গে ফেলেন ১৯৭২ সালের অলিম্পিকে সাতটি ইভেন্টে সোনাজিতে সুইমিংয়ে নুতন ইতিহাস গড়া স্পিটজের ৪০ বছরের রেকর্ড। ২০১২ এসে ফেল্পস নিজেকে যে উচ্চতায় নিয়ে গেছেন সেখানে পৌঁছাতে অন্যদের কতদিন অপেক্ষা করতে হবে তা হয়তো সময়ই বলে দেবে।

এস.এম.বি/০১.০০


বিভাগ: খেলাযোগ   দেখা হয়েছে ৭০৫ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :