বাজেট পাশের আগেই বাড়তি করের বোঝা!

বাজেট পাশের আগেই গ্রাহকদের কাছ থেকে বাড়তি পাঁচভাগ সম্পূরক শুল্ক নেয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন। মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলো বলছে, রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশনাতেই তাঁরা বাজেট প্রস্তাবের পরদিন থেকেই গ্রাহকের কাছ থেকে বাড়তি টাকা আদায় করতে বাধ্য। তবে জরুরি এই খাতে বাড়তি এই কর আরোপ করাকে অযৌক্তিক বলছেন অর্থনীতিবিদরা। গেলো ১৩ জুন বাজেট প্রস্তাবনায় মুঠোফোন সেবার ওপর সম্পূরক শুল্ক শতকরা পাঁচ ভাগ থেকে বাড়িয়ে ১০ ভাগ করার প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু সংসদে এ প্রস্তাব পাশ হবার আগেই গ্রাহকদের ওপর বাড়তি করের বোঝা চাপিয়ে দেয় অপারেটরগুলো। ফলে কেউ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কোনো একটি সেবা নিতে যদি ১১০ টাকা রিচার্য করেন তাহলে তিনি ব্যবহার করতে পারছেন ৭৮ দশমিক ২৭ টাকার সেবা। মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর সংগঠন এমটবের দাবি, বাজেট প্রস্তাবনার রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে শুল্ক কার্যকর করার বিষয়ে একটি পরিপত্রও জারি করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। রাজস্ব বোর্ডের সাবেক এই সদস্য জানালেন, রাজস্ব আইন অনুযায়ী বাজেট প্রস্তাবনার দিন; রাত ১২টা ১ মিনিট থেকেই প্রস্তাবিত শুল্ক কার্যকর করতে অপারেটররা বাধ্য। তবে এই প্রস্তাব যদি সংসদে পাশ না হয় তাহলে গ্রাহকের কাছ থেকে বাড়তি যে টাকা আদায় করা হলো; তা ফেরত দেয়া হবে। সেক্ষেত্রে কোনো অপারেটর যদি এ টাকা ফেরত না দেয় তবে গ্রাহক আইনের আশ্রয় নিতে পারবেন। কিন্তু মোবাইল ফোন সেবার মতো অতি প্রয়োজনীয় সেবা খাতে বাড়তি করারোপকে অযৌক্তিক বলছেন অর্থনীতিবিদরা। বাজেট পাশের আগে বিষয়টি আরেকবার বিবেচনা করার আহবান জানিয়েছেন তারা।

Leave a comment