দুর্নীতি করলেই পুরস্কার !

বড় অপরাধে চাকরি বহাল আর ছোট অপরাধে ছাঁটাই। এমন একাধিক নজির সৃষ্টি করেছে পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন- পিডিবিএফ। তদন্তে দুর্নীতির প্রমাণ মেলার পরও শাস্তি না হয়ে উল্টো পুরস্কৃত করার ঘটনাও ঘটেছে। আবার তদন্তে নির্দোষ প্রমাণের পরও শাস্তির বোঝা নিয়ে বিদায় নিয়েছেন কেউ কেউ।

৩৫ বছর চাকরির পর চাকরী জীবনের শেষ কর্ম দিবসে বরখাস্ত হন পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশনের সাবেক অতিরিক্ত পরিচালক আনোয়ারুজ্জামান। তার বিরুদ্বে টাকা আত্মসাতসহ মোট ১১টি অভিযোগ আনা হয়।

সট: আনোয়ারুজ্জামান, সাবেক অতিরিক্ত পরিচালক, পিডিবিএফ

(যেদিন আমার হার্টে অপারেশন হয় ঠিক সেদিনই আমার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। কতগুলো স্থুল অভিযোগের ভিত্তিতে। এবং আমাকে অন্যায়ভাবে সংযুক্ত রেখেছে ১ বছর ৯ মাস। চাকুরীর শেষ কর্মদিবসে আমাকে অব্যাহতি দেয়া হয়।)

বরখাস্তের পর ন্যায় বিচার চেয়ে মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেন আনোয়ারুজ্জামান।গঠিত হয় তদন্ত কমিটি। তবে কমিটি তার বিরুদ্ধে অভিযোগের কোন সত্যতা পায়নি। তবু পাল্টায়নি তার বরখাস্তের আদেশ।

সট: আনোয়ারুজ্জামান, সাবেক অতিরিক্ত পরিচালক, পিডিবিএফ

(১১টি অভিযোগ এনেছে। তার ভিতর ৫টি ওরা প্রমাণিত দেখেছে যেখাসে কোনো আর্থিক অনিয়ম নেই।)

একই প্রতিষ্ঠানের কিশোরগঞ্জ শাখার কর্মকর্তা ছবি রাণী। প্রায় ২৭ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০১৭ সালের ৫ এপ্রিল তাকে বরখাস্ত করা হয়। একই বছরের ৯ জুলাই তাকে আত্মসাত করা টাকা ফেরত দেয়ার নির্দেশ দিয়ে চিঠি দেয়া হয়। কিন্তু সেটির মিমাংসা হবার আগেই আগস্টে ছবি রানীর বেতন বৃদ্ধির করা হয়। থমকে যায় তার বিরুদ্ধে তদন্ত। এক সময় ঢাকার প্রধান কার্যালয়ে ফিরে আনা হয় তাকে।

সট: ছবি রানী, দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা, পিডিবিএফ

(যদি আমিই দিবো তাহলেতো আমি আগেই দিতাম। এত জল ঘোলা করার দরকার কি ছিলো আমার। আমরা যারা ফিল্ডে কাজ করি আমাদের যে ভুল-ত্রুটি হয় না তা কিন্তু নয়। আমাদের ভুল-ত্রুটি হয়।)

বরিশালে কাজ করা ঝর্ণারানীর বিরুদ্ধেও অভিযোগ ৪ লাখ টাকা আত্মসাতের। একই অভিযোগ সোহেলি পারভিন নামের আরেক জনের বিরুদ্ধেও। টাকা আত্মসাতসহ ৬টি অভিযোগ প্রমাণিত হবার পরও পদোন্নতি দিয়ে কুষ্টিয়ায় বদলি করা হয় ওয়াজেদ আলীকে।

এভাবেই চলছে এই প্রতিষ্ঠান। যার কোন সদুত্তর নেই ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে।

সট: মদন মোহন সাহা, ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক, পিডিবিএফ

(যেহেতু প্রমাণিত হয়েছে সেহেতু শাস্তি তাকে দেয়া হয়েছে।)

তবে সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য জানান, সব তথ্যই তার জানা। দায়ী সবার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা হবে।

সট: স্বপন ভট্টাচার্য, প্রতিমন্ত্রী সমবায় মন্ত্রণালয়।

(এটা যেভাবে চলার কথা সেভাবে চলছে না। যেভাবে ডিরেক্টর নিয়োগ হওয়ার কথা সেভাবে ডিরেক্টর নিয়োগ হচ্ছে না। তবে তেমন হলে অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।)

মন্ত্রী বলেন, দুর্নীতিবাজ কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।

Leave a comment