জেমস বন্ড থেকে নয়ন বন্ড, কিলিং মিশনে “০০৭” গ্রুপ

সুপরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন রিফাত শরীফ। গোটা হত্যামিশন পরিচালনা করেছে জিরো জিরো সেভেন নামের একটি গ্রুপ। এই ফেসবুক গ্রুপে যোগাযোগের মাধ্যমে হত্যা মিশন চূড়ান্ত করে খুনিরা। এই গ্রুপেই রিফাতকে হত্যার নির্দেশ দিয়ে, বলা হয় দা নিয়ে আসতে। এই গ্রুপের প্রধান নয়ন। আর দুই সহযোগী রিফাত ও রিশান ফরাজি।

রিফাতের মূল হত্যাকারী লিটনকে তার বন্ধুরা ডাকতে নয়ন বণ্ড নামে।জেমস বণ্ডের কোড অনুযায়ি লিটন ও তার সহযোগিদের ম্যাসেঞ্জার গ্রুপের নাম ছিল ০০৭। হত্যাকাণ্ডের আগের দিন এই গ্রুপে আরেক হত্যাকারী রিফাত গ্রুপের সব সদস্যকে সকাল ৯ টার মধ্যে হাজির হতে বলে। সাথে কোন অস্ত্র আনতে হবে সেই নির্দেশনাও দেয়া হয়। নিহত রিফাত ও তার স্ত্রী মিন্নির ছবিও পোস্ট করা হয় গ্রুপে। পরদিন সকাল দশটাঢ সেই অস্ত্র দিয়েই রিফাতকে কুপিয়ে হত্যা করে নয়ন, রিফাত ফরাজি ও রিশান ফরাজী।

গত প্রায় এক বছর ধরে রিফাতের স্ত্রী মিন্নিকে উত্যক্ত করে আসছিল নয়ন। বাধা দিলে পরিবারের সদস্যদের মেরে ফেলার হুমকিও দিয়েছিল। কিন্তু এভাবে প্রকাশ্যে রিফাতকে মেরে ফেলা হবে তা ভাবতেও পারেনি মিন্নি।

কেবল রিফাত নয়; নয়ন ও তার সহযোগীরা এর আগেও বেশ কয়েকজনকে কুপিয়ে জখম করে। তাদেরই একজন তৌহিদুল ইসলাম তারিক। ২০১৭ সালে তারিককে কুপিয়ে আহত করে সন্ত্রাসী দুই ভাই, রিফাত ফরাজি ও রিশান ফরাজী। এই ঘটনায় মামলা হলেও এর কোন অগ্রগতি নেই।

বরগুনার পুলিশ বলছে নয়নের বিরুদ্ধে মাদক, অস্ত্রসহ মোট ৬টি মামলায় পুলিশ অভিযোগ পত্র দিলেও; উচ্চ আদালত তাকে সব মামলায় জামিন দিয়েছে।

ওয়েব সম্পাদনা: ধ্রুব হাসান

Leave a comment