বছরটা চলবে সোয়া ৫ লাখ কোটি টাকায়

উন্নয়ন কার্যক্রম, নাগরিক সেবা এবং সরকার পরিচালনার জন্য সোয়া ৫ লাখ কোটি টাকার বাৎসরিক আয়-ব্যয় পরিকল্পনা অনুমোদন করেছে জাতীয় সংসদ। রবিবার পাসের জন্য সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল উপস্থাপন করেন। পরে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। এ সময় সংসদ সদস্যরা টেবিল চাপড়ে সমর্থন ও অভিনন্দন জানান।

সোমবার শুরু হতে যাওয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য ৫ লক্ষ ২৩ হাজার কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব জাতীয় সংসদে পেশ হয় ১৩ জুন। এতে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা এবং জিডিপি’র লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮ দশমিক ২ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে আলোচনা ও সমালোচনার মধ্যদিয়ে সংসদে বাজেট অধিবেশন চলে ১৭ দিন। মাত্র কয়েকটি প্রস্তাবনা সংশোধন করেই শনিবার সংসদে পাশ হয় অর্থবিল।

রোববার সকালে আবার শুরু হয় সংসদ অধিবেশেন। বাজেট পাসের আগে সংসদে উত্থাপিত কয়েকটি মন্ত্রনালয়ের বরাদ্দ সংশোধনী প্রস্তাব গৃহীত হয়। এরপর বাজেট নিদৃষ্টকরণ প্রস্তাব সংসদে উপস্থাপনের জন্য অর্থমন্ত্রীকে আহবান জানান স্পিকার। স্পিকারের আহবানে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট চুড়ান্তকরণ প্রস্তাবগুলো সংসদে পেশ করেন অর্থমন্ত্রী। স্পিকার অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবগুলো সংসদে উপস্থাপন করলে সর্বসসম্মতিতে তা গৃহীত হয়।

প্রতিবেদক: রিয়াজ সেজান

ওয়েব সম্পাদনা: ধ্রুব হাসান

Leave a comment