ফ্রান্সের ভার্সাইয়ে কোনো স্মৃতি নেই মহাকবি মধুসূদনের!

কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৪৭ তম প্রয়াণ দিবস ছিল শনিবার। মৃত্যুর পরও, ফ্রান্সের “ভার্সাই শহর” দু:খ ঘোচাতে পারেনি এই মহাকবি’র। এই শহরের রাস্তা “রু দ্য শঁতিয়ে”র ১২ নম্বর বাড়িটিতে তাঁর বসবাসের কোন স্মৃতিই নেই। তবে, আশার কথা শুনিয়েছেন – সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী। মহাকবির ফ্রান্সের স্মৃতি ধরে রাখতে, উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে, বাংলাদেশ সরকার।

ভার্সাই। প্যারিস থেকে ২১ কিলোমিটার দূরের এই শহরে প্রাসাদ গড়ে তোলেন রাজা চতুর্দশ লুই ১৬৭১ সালে। শত বছরের ওপর ফ্রান্সের রাজধানী থাকা এই শহরেই ১৮৬৩ সালের মধ্যভাগে সপরিবারের আসেন মাইকেল মধুসূদন দত্ত। নিদারুণ দারিদ্র্যের হাত থেকে বাঁচতে বসবাস শুরু করেন ভার্সাইয়ের গরীব পাড়া রু দ্য শঁতিয়ের এই বাড়িটিতে।

১৮৬৩-৬৪। দুই বছর। এই সময়ে এই বাড়িতে তিনি প্রায় একশটি সনেট লেখেন। বলা যায় মাইকেল মধুসূদন দত্তের চর্তুদশপদী কবিতার আঁতুরঘড় ভার্সাইর এই বাড়ি। তবে বঙ্গে জন্ম নেয়া কোন পথিকবর যদি আজ এই রাস্তায় ক্ষণকাল দাঁড়ায়, মিলবে না এই মহাকবির কোন ঠিকুজি।

বাংলা সাহিত্যের অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তকের ভার্সাইর স্মৃতিকে বাঁচিয়ে রাখার তাগিদ এ কালের কবির।

কবি মোহাম্মদ রফিক বলেন, ” কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের স্মৃতি নিয়ে এখানে জাদুঘর করা  যেতে পারে। সরকারের উদ্যোগ নিতে হবে ।”

শিগগিরই স্মৃতি রক্ষার্থে উদ্যোগ নেয়ার কথা বললেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী।

প্রতিবেদক : পার্থ সনজয়

ওয়েব সম্পাদনা : সালমা সাবিহা খুশি

Leave a comment