জামিন চাইতে গিয়ে গ্রেপ্তার ডিআইজি মিজান

দুদকের করা মামলায় আগাম জামিন আবেদন নাকচ করে, সাবেক ডিআইজি মিজানকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে হাইকোর্ট। পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, কাল তাকে নিম্ন আদালতে হাজির করা হবে। এর আগে সকালে, আগাম জামিন চাইতে আদালতে গেলে তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

দুদকের করা মামলায় জামিন নিতে সকাল সাড়ে দশটার দিকে হাইকোর্টে আসেন সাময়িক বরখাস্ত হওয়া পুলিশের ডিআইজি মিজান। এ সময় সাথে ছিলেন, ভাগ্নে মাহমুদুল হাসান।

তিন কোটি ৭ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন এবং তিন কোটি ২৮ লাখ ৬৮ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে গেলো ২৪ জুন ডিআইজ মিজান ও তার স্বজনদের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। এই মামলায় আগাম জামিন চাইতেই তার আদালতে আসা।

শুনানিতে মিজানকে একজন সৎ ও স্বর্ণ পদকপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দাবি করে তার আইনজীবী বলেন, পুলিশে তার অনেক উজ্জ্বল ভূমিকা আছে। আইনজীবীর সাথে দ্বিমত প্রকাশ করে আদালত বলেন, মিজান কেবল পুলিশ বিভাগের ভাবমুর্তিই ক্ষুন্ন করেননি। তিনি আরেকটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানেরও ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করেছেন।

এ সময় তার জামিন আবেদন নাকচ করে এরপরই মিজানকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়ার নির্দেশ দেন আদালত। সেই সাথে তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যেতে শাহবাগ থানা পুলিশকে ডেকে পাঠান। দুদকের আইনজীবী জানান তার বিরুদ্ধে তিনটি অভিযোগের বিচার হবে।

আদালতের নির্দেশের পরই মিজানকে কোর্টরুমে পুলিশের পাহারায় রাখা হয়। পরে সন্ধ্যা ৬টার দিকে তাকে আদালত থেকে শাহবাগ থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। থানায় তাকে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার রুমে রাখা হয়।

একনারীকে জোর করে বিয়ে করা ও নির্যাতনের অভিযোগে দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার হন ডিআইজি মিজান। পরে দুদক কর্মকর্তাকে ঘুষ দেয়ার অভিযোগে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।