মশা নিধনে পরিবেশবান্ধব নতুন ওষুধ

বর্ষা মৌসুম, চারিদিকে খোঁড়াখুঁড়ির কারণে খানাখন্দে জমে থাকছে পানি। আর সেখান থেকেই জন্ম ও বিস্তার ঘটছে এডিস মশার।মশার কামড়ে ডেঙ্গু কিংবা চিকুনগুনিয়ার আক্রান্ত হচ্ছেন রাজধানীর মানুষ। দক্ষিণ সিটি কপোরেশনের হিসেবে জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ২১শ মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনশ রোগী।

রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ক্রমশ বাড়লেও, দক্ষিণের মেয়র বলছেন আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। আর উত্তরের মেয়র জানাচ্ছেন, মশানিধনসহ বংশবিস্তার রোধে কাজ করছে সিটি কর্পোরেশন। অন্যদিকে, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম জানিয়েছেন মশা নিধনের জন্য পরিবেশবান্ধব নতুন ওষুধ আমদানি করা হচ্ছে। দক্ষিণের মেয়র আরও বলছেন, ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। মশা নিধনের কাজ চলছে। আগামী ১৫ জুলাই থেকে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেয়া হবে ডেঙ্গু-চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্তদের।

এদিকে, ডেঙ্গু প্রতিরোধের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জনগণকে সম্পৃক্ত করে মশা মারার উদ্যোগের কথা বলছেন উত্তরের মেয়র।তিনি জানান, উত্তর সিটি করপোরেশনে মশার ওষুধ সরবরাহকারী দি লিমিট এগ্রো প্রোডাক্টকে কালোতালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

এদিকে মশানিধনের জন্য পরিবেশবান্ধব ওষুধ আমদানি করা হচ্ছে জানিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, এরই মধ্যে ওষুধের মান যাচাই-বাছাইয়ের কাজ শুরু হয়েছে। জলাবদ্ধতা রোধে বর্ষার শুরুতেই ড্রেন পরিষ্কার করা হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।

প্রতিবেদক: শারমিন নীরা

ওয়েব সম্পাদনা: ধ্রুব হাসান