ভেঙে গেলো জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট

ভেঙে গেলো জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। এই রাজনৈতিক মোর্চাকে অকার্যকর দাবি করে জোট ছেড়েছে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ। ত্রিশ ডিসেম্বরের পর জোটের কোন অস্তিত্ব নেই দাবি করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কাদের সিদ্দিকী। তার এমন সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি বিএনপির মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

গেলো বছরের ১৩ই অক্টোবর গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনকে প্রধান করে গঠিত হয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ওই মাসের শেষ দিন এই জোটে জামায়াতের অংশগ্রহণ নিয়ে প্রশ্ন তুলে বেরিয়ে যান বিকল্পধারা প্রধান ডা বদরুদ্দোজা চৌধুরী। তিনি গঠন করেন আলাদা জোট যুক্তফ্রন্ট ।

তবে অব্যাহত ছিলো জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কার্যক্রম। নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর সাথে সংলাপ এবং ত্রিশ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারেই নির্বাচনে অংশ নেয় এই জোট। কিন্তু নির্বাচনের পর রাজনীতির মাঠে এই জোটের কোন তৎপরতা চোখে পড়েনি।
ভোট প্রত্যাখ্যান করে পুর্ণ:নির্বাচন দাবি তোলা জোটের নির্বাচিতরা শেষ পর্যন্ত সংসদেও যোগ দিয়েছেন। এমন সিদ্ধান্তে একমত নন কাদের সিদ্দিকী। সোমবার প্রেসক্লাবের এই সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন রাজনীতির মাঠে ঐক্যফ্রন্টের কোন ঠিকানাই তিনি খুজে পাচ্ছেন না।

ঐক্যফ্রন্ট থেকে কাদের সিদ্দীকির সরে দাড়ানোর বিষয়টি কিভাবে দেখছেন ফ্রন্টের সবচে বড় দল বিএনপি ? কোন মন্তব্যে রাজি হননি মির্জা ফখরুল।

আলাদা সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল, ১৯৯৪ সালে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনার ট্রেনে হামলার ঘটনার রায়কে বেআইনি বলে দাবি করেছেন। বিএনপি নেতাদের অভিযোগ সরকার আদালতকে দলীয়ভাবে ব্যবহার করছে।

প্রতিবেদক: শফিক আহমেদ

ওয়েব সম্পাদনা: ধ্রুব হাসান