‘রোহিঙ্গাদের কারণে কক্সবাজারের প্রাকৃতিক ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রোহিঙ্গাদের কারণে কক্সবাজারের প্রাকৃতিক ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। তাই বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দ্রুত নিজেদের দেশে ফিরিয়ে নেয়ার পথ তৈরি করতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহবানও জানান, তিনি। অন্যদিকে, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় বাংলাদেশকে অলৌকিক হিসেবে বর্ণনা করেছেন জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি-মুন।

প্রতিনিয়ত পাল্টে যাচ্ছে আবহাওয়ার-রূপ। বাড়ছে বন্যা-খরা। বাড়ছে তাপ-প্রবাহ। ঝুঁকির মুখে পড়েছে খাদ্য নিরাপত্তা। এদিকে এডিবির তথ্য বলছে, তাপমাত্রা বাড়ার কারণে বেড়েছে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা। এ কারণে তালিয়ে যাবে উপকূলের ১৯ জেলা। এমন পরিস্থিতিতে জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়াবহতা বিশ্বের দেশ গুলোকে সচেতন করতেই ঢাকায় জলবায়ু অভিযোজন বিষয়ক দুদিনের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন।

এতে জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়ানোয় উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রাখায় বাংলাদেশকে অনুকরণীয় বলে মত দেন জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব। আর, নানা সংকটেও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করেন বিশ্বব্যাংকের প্রধান নির্বাহী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানের বাস্তবতায় ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য জলবায়ু পরিবর্তন সব থেকে বড় হুমকি। এই হুমকি মোকাবেলায় বা্ংলাদেশ সরকার গ্রহণ করেছে ‘ডেল্টা প্ল্যান’। জলবায়ু বদলে ভবাবহতার পাশাপাশি বললেন, দেশে ১১ লাখ রোহিঙ্গার আশ্রয় দেয়ার পর ঝূকিঁপূর্ণ হয়ে যাওয়া পরিবেশের কথা।

প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে উঠে এলো, জলবায়ু অভিযোজন প্রক্রিয়ায় অন্যতম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ আঞ্চলিক অভিযোজন কেন্দ্র স্থাপনের কথাটিও।