রিফাত হত্যা মামলা ভিন্ন খাতে নিতে অপপ্রচার; অভিযোগ মিন্নির স্বজনদের

বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যায় সরাসরি জড়িত রিশান ফরাজীসহ এজাহারভুক্ত পাঁচ আসামী এখনো গ্রেপ্তার হয়নি। অথচ রিশান ফরাজীর আপন ভাই মামলার আরেক আসামী রিফাত ফরাজী এখন পুলিশি হেফাজতে। এদিকে হত্যা মামলা ভিন্ন খাতে নিতে একটি মহল অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন মিন্নির স্বজনরা।

রিফাত শরীফ হত্যার পার হয়েছে ১৫ দিন। এপর্যন্ত এই হত্যা মামলার এজাহারে থাকা ১২ জন আসামীর মধ্যে সাত জনসহ মোট ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড। এতে সন্তুষ্টি জানালেও হত্যায় সরাসরি জড়িত রিশান ফরাজী এখনও গ্রেপ্তার না হওয়ায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। তারা বলছেন, রিশানের আপন ভাই মামলার আরেক আসামি রিফাত ফরাজী যখন গ্রেপ্তার হয়েছে তখন রিশানকেও গ্রেপ্তার করা সম্ভব। তারা দুই জনেই বরগুনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও সাবেক সংসদ সদস্য দেলোয়ার হোসেনের ভায়রার ছেলে।

তবে পুলিশ বলছে, বাকি আসামীদের ধরতে অভিযান চলছে। শুধু তাই নয় আসামীদের যারা আশ্রয় দিচ্ছে তাদেরও চিহ্নিত করা হচ্ছে।

এদিকে রিফাত হত্যার পর থেকেই তার ও তার স্ত্রী মিন্নির পরিবারকে নিরাপত্তা দিয়ে আসছে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন। তবে এখন এই হত্যা মামলা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে একটি মহল অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন মিন্নির স্বজনরা।

রিফাত হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত রাফিউল ইসলাম রাব্বি, অলিউল্লাহ অলি, তানভীর হোসেন, চন্দন, হাসান, সাগর ও নাজমুল হাসান হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। এখন রিমান্ডে রয়েছে রিফাত ফরাজী, টিকটক হৃদয়, আরিয়ান শ্রাবন, সাইমুন ও রাতুল।

প্রতিবেদক: ইমরান হোসেন এবং শাহরিমা বৃতি

ওয়েব সম্পাদনা: ধ্রুব হাসান