সক্রিয় জালনোট তৈরির চক্র

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে রাজধানীতে সক্রিয় রয়েছে জালনোট তৈরির চক্র। তাদের লক্ষ্য সীমান্তে গরু আমদানিকারকরা। রামপুরায়, জলনোট তৈরির একটি কারখানার খোঁজও পেয়েছে গোয়েন্দারা। উদ্ধার হয়েছে প্রায় বিশ লাখ জাল ভারতীয় রুপি। আটক হয়েছে তিনজন।

কাগজে নিরাপত্তা সুতা লাগিয়ে, প্রিন্টের জন্য তৈরি করতো আব্দুর রহিম। এ কাজের জন্য ২০০৭ এবং ২০১১ সালে, দুদফা র্যািবের হাতে গ্রেফতার হয় সে।

দলটির নেতা রফিকুল ইসলাম খসরুও এরই মধ্যে দুইবার জেলে গেছে। সেখান থেকে বেরিয়ে এই নতুন চক্র বানায় সে। বানানো জাল নোট রফিকুল বিক্রি করতো সীমান্ত এলাকাগুলোতে।

গোয়েন্দা পুলিশ উত্তরের একটি দল এই চক্র সম্পর্কে জানতে পেরে সোমবার অভিযান চালান সেই বাসায়। তারা জানান, কোরবানীর ঈদ উপলক্ষেসীমান্তের ভারতীয় গরু আমদানিকারক এবং অবৈধ পথে চোরাচালানকারীদের টার্গেট করেই মাঠে নেমেছিল এ চক্র।

তিনি জানান, চক্রটি রমজানের সময় থেকে এ পর্যন্ত দুই দফা জাল ভারতীয় রূপির চালান পাঠিয়েছে যশোর, রাজশাহী ও দিনাজপুর সীমান্তে। এবার আরও ভাল কাগজে প্রিন্ট দিয়ে নতুন চালান প্রস্তুত করছিলো তারা।