‘নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে অন্যায় করেছে আইসিসি’

দ্বাদশ বিশ্বকাপে ১০০ ওভার ও সুপার ওভারও নির্ধারণ করতে পারল না বিশ্বকাপ জয়ীকে। ম্যাচ টাই হওয়ার পর সুপার ওভারে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড উভয়েই ১৫ রান করায় ক্রিকেটের নিয়ম-নীতিতে চোখ পড়ল সবার। সুপার ওভার নিয়মে বলা আছে, ফাইনালে এই ওভারও যদি টাই ভাঙতে না-পারে, তাহলে যে দল ম্যাচে বেশি বাউন্ডারি মেরেছে, তারাই ট্রফির মালিক হবে। এই নিয়মেই ২০১৯ সালের বিশ্বকাপ ঘরেই রেখে দিল ইংল্যান্ড। তবে এই নিয়মের দিকে আঙুল তুলেছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা।
ভারতের টেস্ট ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পুজারাও বলেছেন ২০১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে অন্যায় করেছে আইসিসি।

ফাইনাল লড়াইয়ে ২২ চার ও ২ ছয় হাঁকায় ইংলিশরা। বিপরীতে নিউজিল্যান্ডের ১৪ চার ও ২ ছক্কা। ম্যাচ জয়ের ক্ষেত্রে এ বাউন্ডারি সংখ্যাকেই প্রাধান্য দিয়েছে আইসিসি। এখানেই মূল আপত্তি পুজারার।

পুজারা বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের প্রতি অবশ্যই কিছুটা অন্যায় হয়েছে। কারণ তারা দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলেছে। সর্বোপরি দিনশেষে এটি অসাধারণ গেম ছিল। আমি নিশ্চিত, মানুষের স্মৃতির মণিকোঠায় ম্যাচটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে।’

ভারতীয় টেস্ট বিশেষজ্ঞের মতে, ‘শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে কোনো দলই পরাজিত হয়নি। এমন হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর বিশ্বকাপ ট্রফিটি দুদলেরই মধ্যে ভাগাভাগি করে দেয়া উচিত ছিল। তবে সিদ্ধান্তটি একান্ত আইসিসির।’

ওয়েব সম্পাদনা : জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়