বন্যা পরিস্থিতির অবনতি; পানি বেড়ে ৫০ গ্রা‌ম প্লাবিত

আগের সব রেকর্ড ছাড়িয়েছে গাইবান্ধার বন্যা পরিস্থিতি। বিপদসীমার ৯৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছে ঘাঘট নদীর পানি। ছয়টি বাঁধের ১৩টি পয়েন্ট ভেঙ্গে গেছে। হুমকির মুখে পড়েছে ডিএনডি বাঁধের ৪০ কিলোমিটার। এ জেলার ৪টি উপজেলাসহ পানি ঢুকে পড়েছে শহরের ভেতর পর্যন্ত।

রাত দেড়টার দিকে হঠাৎ করে ঘাঘট নদীর বেড়িবাঁধের কিছু অংশ ভেঙ্গে যায়।

গভীর রাতে ঘরে পানি ঢুকে পড়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েন গ্রামের মানুষ। তলিয়ে যায় ফকিরপাড়া,পশ্চিম কমরনৈ,ফারাজি পাড়া।

বাড়িঘরে এখন কোমর পানি। বাধ্য হয়ে কোলের সন্তান আর মাকে নিয়ে বাঁধে আশ্রয় নিয়েছেন তাসলিমা।

জীবন বাঁচাতে বাঁধে আশ্রয় নিলেও সাথে কিছুই নিয়ে আসতে পারেন নি তছলিমা। খাবার হিসেবে সামান্য চাল ভাজা আর পেয়াজই জুটেছে। কিন্তু যে বাঁধ ভেঙ্গে ঘর ডুবেছে সেই বাঁধেই কি নিরাপদ তারা।

গাইবান্ধার প্রায় সবগুলো বাঁধই হুমকির মুখে। আর ১৩টি পয়েন্টে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। কিন্তু তা মেরামতের জন্য লোকবল পাওয়া যাচ্ছেনা বলে জানান,পানিউন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতিপ্রসাদ ঘোষ।

পানির উচ্চতা অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে বেশি। তাই বাঁধগুলো আরো উচু করা এবং ঝুঁকিমুক্ত করার কাজ করা হচ্ছে বলেও জানান প্রকৌশলী।

২১ বছর পর পানি ঢুকে পড়েছে গাইবান্ধা শহরে। ফলে দূর্ভোগের মাত্রা বেড়েছে কয়েকগুন। সহসা এই পানি নামবে না আশংকা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

প্রতিবেদক : নয়ন আদিত্যে

ওয়েব সম্পাদনা : জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়