আদালতে মিন্নীর জবানবন্দি

বরগুনায় রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। নির্যাতন ও জোরজবরদস্তি করে এই জবানবন্দি দিতে বাধ্য করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন। আর আইনজীবীরা বলছেন, মিন্নিকে আদালতে তোলার ব্যাপারে তার পরিবারকে জানানো উচিৎ ছিলো।

রিফাত শরীফ হত্যা মামলার এক নম্বর সাক্ষী ছিলেন তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দীকা মিন্নী। হত্যাকারীদের চিহ্ণিত করতে তাই মঙ্গলবার সকালে তাকে বাড়ি থেকে নেয়া হয় পুলিশ লাইনসে। সারাদিন চলে জিজ্ঞাসাবাদ। এরপর রাত ৯টায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

বুধবার মিন্নীকে আদালতে তুলে পাঁচদিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। কিন্তু দুই দিনের মাথায় মিন্নী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হয়। তাই শুক্রবার দুপুরে জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক সিরাজুল ইসলাম গাজির আদালতে তাকে হাজির করা হয়। জবানবন্দি নেয়ার পর সন্ধ্যায় মিন্নীকে জেল হাজতে পাঠায় আদালত।

মিন্নীর বাবা জানান, মেয়েকে আদালতে তোলার বিষয়টি তারা টেলিভিশনের মাধ্যমে জানতে পারেন। এরপর দ্রুত ছুটে আসেন আদালতে। তিনি অভিযোগ করেন, মিন্নীকে রিমান্ডে নিয়ে মারধর করে গোপনে আদালতে তুলে জবানবন্দি নেয়া হয়েছে।

মিন্নীর বাবার সাথে একমত হয়ে জেলার আইনজীবীরাও বলছেন, জবানবন্দির জন্য আদালতে তোলার বিষয়টি অবশ্যই তার পরিবারকে জানানো উচিৎ ছিলো।

২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের কাছেই স্ত্রী মিন্নীর সামনে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এরপর ওই ঘটনার সিসিটিভির ফুটেজ দেখে তার স্ত্রী মিন্নীকে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠে।

প্রতিবেদক: মনিরা কাজরী

ওয়েব সম্পাদনা: ধ্রুব হাসান