শিশুর কাটা মাথা: ঘাতক রবিন ছিল মাদকাসক্ত

নেত্রকোনায় শিশু সজীব হত্যা এবং গণপিটুনিতে ঘাতক রবিন হত্যার ঘটনায় দুটি আলাদা মামলা হয়েছে। পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, ঘাতক রবিন একজন মাদকাসক্ত এবং পূর্ব শত্রুতার জেরে শিশু সজীবকে হত্যা করেছে সে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের বারহাট্টা সড়কের হরিজন পল্লীতে রক্তমাখা ব্যাগ নিয়ে মদ খেতে যান কাটলী এলাকার রিকশাচালক রবিন। ব্যাগ থেকে রক্ত পড়তে দেখে উৎসুক জনতা সেটি দেখতে চায় এবং সেখানে থেকে এক শিশুর কাটা মাথা উদ্ধার করে। এসময় রবিন দৌড়ে পালিয়ে গেলে তাকে ধাওয়া করে গণপিটুনী দেয় বিক্ষুব্ধ জনতা। ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়।

এরপর পুলিশ এসে ওই এলাকারই নির্মানাধীন একটি ভবন থেকে শিশুটির শরীর উদ্ধার করে। পরে মৃতদেহটি রিকশাচালক রইছ উদ্দিনের আট বছরের শিশু সজীবের বলে নিশ্চিত করে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সে নিখোঁজ ছিলো।

এলাকাবাসী বলছেন, সজীব ও নিহত রবিন একই এলাকার বাসিন্দা। সজীবের বাবার সাথে রবিনের সম্পর্ক ভালো ছিলো।তবে রবিন ছিলো মাদকাসক্ত।

এদিকে শিশুটির পরিবার জানায়, রবিনের সাথে তাদের কোনো ধরণে বিরোধ ছিল না।

এদিকে এঘটনায় আলাদা দুটি মামলা করেছে শিশু সজীবের বাবা ও পুলিশ। আর এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সবাইকে আতঙ্কিত না হওয়ার আহবান জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।

নিহত শিশু সজীবের মৃতদেহটি একনজর দেখতে কাটলী এলাকায় তার বাড়িতে ভীড় করছে মানুষ।

প্রতিবেদক: সুব্রত সুমন এবং সুরাইয়া অনু

ওয়েব সম্পাদনা: ধ্রুব হাসান