ফের বড় ধরনের বন্যার আশঙ্কা

মৌসুমী বায়ু বঙ্গোপসাগরে দুর্বল অবস্থায় থাকলেও বাংলাদেশে ফের সক্রিয় হয়েছে। ফলে বুধবার থেকে ফের শুরু হয়েছে বৃষ্টি। ভারী বৃষ্টির প্রবণতা আরো বাড়তে পারে। এতে কয়েকদিন আগে বৃদ্ধি পাওয়া তাপমাত্রা কমতে থাকবে। মানুষের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি ফিরতে পারে। তবে আবারো বন্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বুধবার আবহাওয়া অধিদফতর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বুধবার সকালে রাজধানীতে রোদ দেখা গেলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেঘ ঘিরে ফেলে পুরো আকাশ। মাঝে মধ্যে রোদ কিছুটা উঁকি দেয়। এরপর রাত পৌনে ১১টার দিকে রাজধানীতে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়ে মাঝারি বৃষ্টিপাতে পরিণত হয়। প্রায় ২০ মিনিট পর আবার গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়। একই সঙ্গে ঘণ্টায় আট থেকে ১২ কিলোমিটার বেগে বাতাস বয়ে যায়।

আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস বলেন, মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে মোটামুটি সক্রিয় হয়েছে। এটি ধীরে ধীরে দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিরাজ করতে পারে।

তিনি আরো বলেন, বৃদ্ধি পাওয়া তাপমাত্রা ধীরে ধীরে হ্রাস পাবে। বর্তমানে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৪.৪ থেকে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বিরাজ করছে, তা কমে ৩২ থেকে ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসতে পারে। তাপমাত্রা কমলেও গরমের প্রখরতা তেমনটা কমবে না। কারণ, এখন বর্ষা মৌসুম চলছে। এ সময় ভ্যাপসা গরম বিরাজ করে।

বুধবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, চট্টগ্রাম, বরিশাল, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া কিছু কিছু জায়গায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা হ্রাস পেতে পারে।

অন্যদিকে নদী বন্দরগুলোতে এক নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। আরো সাত দিন বৃষ্টি হতে পারে।

ওয়েব সম্পাদনা : জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়