বিশ্বের দীর্ঘায়ু ব্যক্তিরা কী খেতেন?

সবাই দীর্ঘায়ু পেতে চায়। যৌবন ধরে রাখতে শারীরিক কসরত ও স্বাস্থকর খাবারের বিকল্প নেই। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষেরা অনেক দীর্ঘায়ু পেয়েছেন। তবে তারা খাবার খাওয়ার ক্ষেত্রে তালিকা মেনে চলতেন। আসুন জেনে নেই বিশ্বের শতাবর্ষী ব্যক্তিরা কি ধরণের খাবার খেয়ে দীর্ঘদিন বেঁচে ছিলেন।

ইতালির এমা মোরানো

পৃথিবীর অন্যতম বয়স্ক ব্যক্তি ইতালির এমা মোরানো। তিনি ২০১৭ সালে মারা যান, যখন তার বয়স ছিল ১১৭ বছর। বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে তিনি তার দীর্ঘজীবনের রহস্যের কথা বলে গেছেন। এমা মোরানো বলেন, প্রতিদিন সকালে এমা ৩ করে ডিম খেতেন। এর মধ্যে ২ টি কাঁচা ডিম কিমা করা মাংস দিয়ে খেতেন।

সুসানা মুসহাট জোনস

মার্কিন নারী সুসানা মুসহাট জোনস ২০১৬ সালে ১১৬ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি সকালের নাস্তাকেই গুরুত্ব দিয়েছেন। প্রতিদিন সকালে তিনি চার টুকরা বেকন এবং ডিম খেতেন।

তাও পর্চোন-লিঞ্চ

তার বয়স ৯৮ বছর। তিনি বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ইয়োগা প্রশিক্ষক। তিনি নিরামিষভোজী। তবে মাঝে মধ্যে তিনি চিংড়ি খেতেও পছন্দ করেন। এছাড়া তিনি প্রতিদিন তাজা ফলমূল, শাকসবজি খান।

ক্রীড়াবিদ ধর্মপাল সিং গুহ

ভারতের প্রবীণতম ক্রীড়াবিদ ধর্মপাল সিং গুহ ১১৯ বছর বয়সে মারা যান । তিনি সব ধরণে ফ্যাটি খাবার, চিনি ও ক্যাফেইন জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতেন। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় থাকতো গরুর দুধ, হারবাল চাটনি এবং মৌসুমি তাজা ফলমূল।

মিসাও ওকাওয়া

২০১৫ সালে ১১৭ বছর বয়সে মারা যান এই শতোবর্ষী নারী। জাপানের একমাত্র দীর্ঘায়ু প্রাপ্ত ব্যক্তি তিনি। একবার জাপান টাইমসে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, মজাদার খাবারই নাকি তার দীর্ঘায়ু পাওয়ার চাবিকাঠি। তার পছন্দের খাবার ছিলো সুশি। তিনি নিয়ম করে আট ঘণ্টা ঘুমাতেন।

ওয়েব সম্পাদনা : জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়