“ডেঙ্গুর জীবাণুবাহি একটি এডিস মশা আরেকটি জীবানুবাহি মশার জন্ম দিচ্ছে”

রাজধানীতে এডিস মশার উপস্থিতির ঘনত্ব অতীতের সব রেকর্ড ভেঙেছে। এডিস মশা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সবশেষ জরিপে শঙ্কাজনক এই তথ্য উঠে এসেছে। তাই মশা নির্মূল

ডেঙ্গুতে ভুগছে পুরো এশিয়া

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশসহ এশিয়ার দেশগুলোতে বেড়েছে ডেঙ্গুর প্রকোপ। জুন-জুলাই মাসে তাপমাত্রা আর বৃষ্টিপাত বেড়ে যাওয়ায় দ্রুত বিস্তার হচ্ছে এডিস মশার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

অপ্রশিক্ষিত কর্মী দিয়ে ছিটানো হয় মশার ওষুধ

উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ১৪ নাম্বার ওয়ার্ড। এডিশ মশা নিধনে ফগিং মেশিনে ওষুধ ছিটান সিটি কর্পোরেশনের কর্মীরা। কিন্তু তিনি জানেন না এডিস মশা মারার জন্য

জুন-জুলাইয়ে এডিস মশা অধিক জীবাণু ছড়াবে

আগস্ট-সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গু আক্রমণ আরো ভয়াবহ হওয়ার আশঙ্কা করছেন মশা গবেষকরা। তারা বলছেন, দুই সিটি কর্পোরেশনের স্প্রে করা বিষে মশা মরছে না।। একই সাথে ওরা

রাজধানীতে প্রতিদিন গড়ে ১৭০ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত

রাজধানীতে এখন প্রতিদিন গড়ে ১৭০ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছে। এই তথ্য জানিয়ে রোগতত্ত্ব গবেষণা প্রতিষ্ঠান বলছে, এবার ডেঙ্গু ভাইরাস-থ্রির প্রকোপ বেশি হওয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা

মশা নিধনে পরিবেশবান্ধব নতুন ওষুধ

বর্ষা মৌসুম, চারিদিকে খোঁড়াখুঁড়ির কারণে খানাখন্দে জমে থাকছে পানি। আর সেখান থেকেই জন্ম ও বিস্তার ঘটছে এডিস মশার।মশার কামড়ে ডেঙ্গু কিংবা চিকুনগুনিয়ার আক্রান্ত হচ্ছেন

‘‌মশা মারতে আনা হচ্ছে নতুন ওষুধ’

প্রচলিত ওষুধে এডিস মশা মরছে না, তাই চলতি মৌসুমে নতুন ওষুধ ব্যবহার করা হবে জানালেন উত্তরের সিটি মেয়র। সেই সাথে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া থেকে