ব্রেকিং নিউজ:
সহযোগিতা ছাড়াই চলছে চিলমারীর বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়
নিউজ ডেস্ক    আগষ্ট ২৫, ২০১২, শনিবার,     ০৬:২৯:৩২

 

কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে লেখাপড়ার সুযোগ হয়েছে ৮২ শিশুর। আশেপাশের এলাকাতো বটেই দূর দুরান্ত থেকে অনেক অভিভাবক তাদের শিশুকে এই স্কুলে ভর্তি করাচ্ছেন।
প্রত্যন্ত গ্রামের প্রতিবন্ধী শিশুদের লেখাপড়ার জন্য কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার রমনা গ্রামে গড়ে ওঠেছে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়।
ব্যক্তি উদ্যোগে তৈরি এই বিদ্যালয়ের উদ্যোক্তা রিক্তা বানু, যিনি পেশায় নার্স। বছরে কয়েক আগে তিনি মেয়েকে ভর্তি করিয়েছিলেন একটি বিদ্যালয়ে। কিন্তু প্রতিবন্ধী হওয়ায় শিক্ষকরা তার মেয়েকে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয়। সেই কষ্ট এখনও ভুলতে পারেননি রিক্তা বানু। তাই নিজ উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন এই বিদ্যালয়টি।
রিক্তা বানু জানিয়েছেন, প্রথমে নিজের ছয় শতক জমির ওপর দোচালা টিনের ঘরে শুরু করেন বিদ্যালয়ের কার্যক্রম। এখন ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ৮২ জন। শিক্ষকরা ক্লাশ নেন স্বেচ্ছায়। তাদের নেই কোনো বেতন। শুধু ভালোবাসার জোরেই টিকে আছেন তারা। যেখানে প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে নানা কটুকথা শুনতে হয় মায়েদের। সেখানে তাদের লেখাপড়ার কথা বলার সাহস কোথায়। তবে চিলমালীর এই প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে কারণে সেই আশা পূরণ হচ্ছে মায়েদের।
সরকারি সহায়তার জন্য রিক্তা বানু অনেক জায়গায় ছোটাছুটি করছেন। এতে কিছুই লাভ হয়নি। তবে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শোনালের সহযোগিতা করার লম্বা ফিরিস্তি। ব্যক্তি উদ্যোগে তৈরি এই বিদ্যালয় সারাদেশে ছড়িয়ে পড়লে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুরা লেখাপড়া সুযোগ পাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
বি.পি/এস.এম.বি/০৬.৪০
বিভাগ: দেশযোগ   দেখা হয়েছে ৮৭১ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :