ব্রেকিং নিউজ:
অনলাইন গণমাধ্যমের বিকাশ বান্ধব নতুন নীতিমালা হবে: তথ্যমন্ত্রী
নিউজ ডেস্ক    সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১২, শনিবার,     ০৯:৪৫:২১

 

খসড়া নীতিমালা গুরুত্বপূর্ণ নয়, বরং সম্পৃক্ত সবাইকে নিয়ে আলোচনার পর অনলাইন সংবাদমাধ্যমের জন্য বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রবাহের সহায়ক নতুন নীতিমালা তৈরির আশ্বাস দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।
শনিবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরসি মজুমদার আর্টস অডিটরিয়ামে ‘অনলাইন গণমাধ্যম পরিচালনা (খসড়া) নীতিমালা-২০১২: পর্যালোচনা ও মূল্যায়ন’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি বলেন,“আলোচনা ছাড়া কোন নীতিমালাই চূড়ান্ত করা হবে না। নতুন নীতিমালা অনলাইনকে নিয়ন্ত্রণ বা স্তব্ধ করার জন্য হবে না, এটি হবে অনলাইন সংবাদমাধ্যমের বিকাশ বান্ধব- যা জনগণকে সত্য তথ্য দিতে সাহায্য করবে।”
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ আয়োজিত এই সেমিনারে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন গণযোগযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রভাষক মোহাম্মদ সাইফুল আলম চৌধুরী ও সাইফুল হক। মূল প্রবন্ধে প্রস্তাবিত নীতিমালার ভালো ও মন্দ দিকগুলোর তুলানমূলক বিশ্লেষণ করে একটি সমন্বিত গণমাধ্যম নীতিমালার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোড় দেয়া হয়।
মূল প্রবন্ধে আলোচকরা বলেন, নিয়ন্ত্রণ নয়, বরং অনলাইন সংবাদমাধ্যমগুলোকে বিকাশের সুযোগ দিতে সরকারের উচিত সহায়ক নীতিমালা তৈরি করে এর উন্নয়নের পথ সুগম করা। সংবাদপত্রগুলোকে যেমন বিনাশুল্কে নিউজপ্রিন্ট আমদানির সুযোগ দেওয়া হয় তেমনি অনলাইন সংবাদমাধ্যমকে সাশ্রয়ী মূল্যে দ্রুতগতির ইন্টারনেট সুবিধা দেওয়াও প্রয়োজন বলে মত দেন তারা।
আলোচকরা আরো জানান, সরকারের প্রস্তাবিত নীতিমালায় যোগ করা মাত্রাতিরিক্ত ব্যবসায়িক প্রবণতা ছেড়ে সরকারের উচিত হবে অনলাইনের ছোট ছোট উদ্যোগগুলোকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেয়া, কারণ এই উদ্যোগগুলোই মানুষের মধ্যে অনলাইনে সংবাদ পাঠের অভ্যাস তৈরি করছে।
বিভাগীয় চেয়ারপার্সন অধ্যাপক আখতার সুলতানার সভাপতিত্বে সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আআমস আরেফিন সিদ্দিক। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, সাংবাদিকতা চর্চায় স্বাধীনতার পাশাপাশি এর পরিচালনাকারিদের দায়িত্বশীলতাও জরুরি।
ঢাবি উপাচার্য আরেফিন সিদ্দিক বলেন, “সমন্বিত গণমাধ্যম নীতিমালায় বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ উপস্থাপনের বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। তথ্য প্রযুক্তিকে কোনভাবেই ব্যক্তি স্বার্থ বা রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করা যাবেনা। সংবাদ যদি বস্তুনিষ্ঠ না হয় তাহলে কোন ধরণের নীতিমালার মূল্য থাকেনা।”
প্রবন্ধের ওপর আলোচনায় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. কাবেরী গায়েন বলেন, খসড়া নীতিমালায় জুড়ে দেওয়া শর্তগুলো কোন ভাবেই অনলাইন বান্ধব নয়। এই ধরণের নীতিমালার কারণে অনলাইনের মাধ্যমে সাধারণ জনগণকে মত প্রকাশের যে সুযোগ এনে দিয়েছিল, তা বন্ধ হয়ে যাবে। নতুন নীতিমালা তৈরির সময় ছোট ছোট সংবাদমাধ্যমগুলোও যাতে টিকে থেকে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারে সে দিকটি মাথায় রাখতে হবে।”
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এসএম শামীম রেজা। সেমিনারে আরো উপস্থিত ছিলেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক আহাদুজ্জামান মোহাম্মদ আলী, অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন, সহযোগী অধ্যাপক মনসুর আহমেদ, রোবায়েত ফেরদৌস, সাবরিনা সুলতানা চৌধুরী, শুধাংসু শেখর হালদারসহ বিভাগের প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা।
সেমিনারের শুরুতে সদ্যপ্রয়াত প্রখ্যাত সাংবাদিক আতাউস সামাদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

এম. এস./১৮.৪৫
বিভাগ: শীর্ষ সংবাদ   দেখা হয়েছে ১৫৯৬ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :