ব্রেকিং নিউজ:
রামু হামলায় সরকার জড়িত: খালেদা জিয়া
নিউজ ডেস্ক    নভেম্বর ১০, ২০১২, শনিবার,     ০৩:১১:৫১

 

কক্সবাজারে রামুসহ সব বৌদ্ধপল্লী ও মন্দিরে সহিংস ঘটনায় সরকারই জড়িত বলে অভিযোগ করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় এলে এসব দুষ্কৃতিকারীদের বিচার করা হবে।
রামুর বৌদ্ধ বিহারে সাম্প্রদায়িক হামলার ধ্বংসযজ্ঞ পরিদর্শন করে শনিবার বিকেলে খিজারী আদর্শ উচ্চবিদ্যালয় মাঠে এক সম্প্রীতি সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি।
স্থানীয় বিএনপি আয়োজিত সম্প্রীতি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিরোধী দলীয় নেতা বলেন, ২৯ ও ৩০ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের রামু, উখিয়া, টেকনাফ ও চট্টগ্রামের পটিয়ায় বৌদ্ধ বসতি ও মন্দিরে উগ্রপন্থী দুর্বৃত্তদের ব্যাপক তাণ্ডবের সময় প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী ছিল সম্পূর্ণ নিষ্ক্রিয়।
হামলা প্রতিরোধে তাদের এই নির্লিপ্ত ভূমিকা থেকেই বোঝা যায়, এ ঘটনায় সরকার ও আওয়ামী লীগ জড়িত।
সরকার প্রশাসনকে সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে আনতে দেয়নি—এ অভিযোগ করে খালেদা জিয়া বলেন, মন্দিরে হামলার ঘটনা ছিল ‘পূর্বপরিকল্পিত’, তা নইলে এতো লম্বা সময় ধরে ধ্বংসযজ্ঞ চলার পরও কেন প্রশাসন, পুলিশ, বা র্যা ব ও সেনাবাহিনী আসেনি?
বাংলাদেশের ইতিহাসের ঘৃণ্যতম এই সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার করার দৃঢ় প্রত্যয় জানিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, এই সরকার বিচার না করলেও আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে রামুর ঘটনায় জড়িতদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানো হবে।
খালেদা জিয়া আরো বলেন, কোনো ঘটনা ঘটলেই সব দোষ বিএনপি ও জামায়াতসহ বিরোধী দলের ওপর চাপানোর চেষ্টা চালায় সরকার। যেমনটি করা হয়েছে পরিস্থিতি শান্ত করতে এগিয়ে আসা বিএনপির স্থানীয় সংসদ সদস্য লুৎফর রহমান কাজলের ওপর সব দোষ চাপিয়ে দিয়ে।
এর আগে কক্সবাজারের চকরিয়ায় আয়োজিত এক পথসভায় দেয়া ভাষণে খালেদা জিয়া বলেন, বর্তমান সরকারের দুর্নীতি দেশকে ৫০ বছর পিছিয়ে দিয়েছে। ক্ষমতায় গেলে লুটপাট ও দুর্নীতির দায়ে ক্ষমতাসীনদের বিচার করা হবে।
জামায়াতে ইসলামীকে আওয়ামী লীগ নিজেদের জোটে টানার চেষ্টা করছে এমন অভিযোগও করেছেন খালেদা জিয়া।তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে কখনোই বিশ্বাস করা যায় না। তারা জামায়াতের বিরুদ্ধে কথা বলে, আবার তাদেরকে সাথে নিয়েই ১৯৯৬‘তে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আন্দোলন করেছিল। এবারও তারা চেষ্টা করছে জামায়াতকে পক্ষে আনার ।
স্বৈরাচার এরশাদের শাসনামলেও জামায়াতের সঙ্গে আওয়ামী লীগের সখ্যতা ছিল বলে মন্তব্য করেন খালেদা জিয়া।
রামু উপজেলা বিএনপি সভাপতি আহমদুল হকের সভাপতিত্বে সম্প্রীতি সমাবেশে আরো বক্তৃতা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. আবদুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, জামায়াতের এমপি শামসুল ইসলাম, বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের নেতা ড. সুকোমল বড়ুয়া, শুদ্ধানন্দ মহাথেরো প্রমুখ।
এদিকে খালেদা জিয়া সমাবেশ স্থলে পৌঁছার আগেই, দুপুর সোয়া ২টায়, মাঠের পাশের একটি স্কুলের মিলনায়তনের টিনের ছাউনি ভেঙ্গে পড়ে ৪০ জন আহত হয়েছেন।

এম. এস./১৮.৫৫
বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ৬৩৭ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :