ব্রেকিং নিউজ:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে দেয়া হবে না:প্রধানমন্ত্রী
নিউজ ডেস্ক    নভেম্বর ১২, ২০১২, সোমবার,     ০৮:০১:১৫

 

বাংলাদেশের ঐতিহ্যগত সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ধ্বংসের অপচেষ্টা বন্ধ করার জন্য বিরোধীদলের প্রতি আহবান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের জনগণ তাদের ভাগ্য নিয়ে কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেবে না।
রোববার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবাষির্কী উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি বলেন,বিএনপি ও জামায়াতের নেতৃতাধীন উগ্রশক্তি পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক সংঘাতের বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে।
রামু, উখিয়া ও চট্টগ্রামে বৌদ্ধ মন্দিরগুলো পুড়িয়ে সাম্প্রদায়িক বিরোধের আগুন লাগানো এবং পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহে বিএনপি-জামায়াতের ভূমিকার সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনার সাপ হয়ে দংশন করে পরে ওঝা হয়ে ঝাড়ার খেলা বন্ধ করুন।’
গতকাল রামুতে এক জনসমাবেশে বিরোধী দলীয় নেতা ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্যর নাকচ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সংকট মোকাবেলায় ঘটনার পরপরই সরকার ও আওয়ামী লীগ নেতারা ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে, যেখানে বিএনপি চেয়ারপার্সন গেলেন ঘটনার ৪১দিন পর।
দেশের বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বহু যুবলীগ নেতা-কর্মীর আত্মত্যাগ ও অবদানের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জনগণের ভাগ্যোন্নয়নে তাঁর গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর শেখ ফজলুল হক মনিকে প্রধান করে সংগঠনটি গঠিত হয়।
যুবলীগ কর্মীদের অবশ্যই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশ গড়তে উদ্বুদ্ধ হতে হবে একথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, একজন রাজনৈতিক কর্মী ত্যাগের মানসিকতা ছাড়া জনগণকে কিছুই দিতে পারে না।
২০১১ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উত্থাপিত ‘শান্তির মডেল’-এর আলোকে এবার যুবলীগের ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর প্রতিপাদ্য নির্বাচন করা হয় ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’।
দেশের পাশাপাশি দলের জন্য সর্বোচ্চ আন্তরিকতা ও ত্যাগের মানসিকতা নিয়ে কাজ করার জন্য যুবলীগ কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের ক্ষমতায়নের মাধ্যমে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত জাতি গঠন করা সম্ভব হলেই কেবল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন সত্যি হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘জনগণকে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ দেয়ার মাধ্যমেই কেবল তাদের ক্ষমতায়ন সম্ভব। এজন্য জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে হবে। কোন দল ক্ষমতায় আসবে সেটা বিষয় নয়।’
যুবলীগ সভাপতি মোহাম্মদ ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সভাপতি এবং যুবলীগের গবেষণা কমিটির প্রধান প্রফেসর আবুল বারাকাত জনগণের ক্ষমতায়ন শীর্ষক মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন।
অধ্যাপক বারাকাত বলেন, জনগণের ক্ষমতায়ন সম্বলিত টেকসই গণতন্ত্র ও বিশ্বশান্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্ব (পিস মডেল) জাতিসংঘের ১৮৯ সদস্য কর্তৃক গৃহীত হয়েছে, কারণ এতে প্রগতিশীল, উদার, জ্ঞান ভিত্তিক আধুনিক ধর্মনিরপেক্ষ ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পথ বাতলে দেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, এই মডেলে জনগণের রাজনৈতিক ও মৌলিক অধিকারের নিশ্চয়তাও দেয়া হয়েছে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যানদের মধ্যে আমির হোসেন আমু, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এম হারুন অর রশিদ ।
অনুষ্ঠানে ক্রিকেট তারকা সাকিব আল হাসানসহ ৮ যুবককে নিজ নিজ অঙ্গনে অনন্য অবদান রাখার জন্য পুরস্কৃত করা হয়। পুরস্কারপ্রাপ্তরা হচ্ছেন- এভারেস্ট বিজয়ী মুসা ইব্রাহিম, নিশাত মজুমদার ও ওয়াসফিয়া নাজনীন, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জন্য ‘মঙ্গল দীপ’ সফটওয়্যার উদ্ভাবনকারী অধ্যাপক রুহুল আমিন, ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)-এর উদ্ভাবক মাহমুদুল হাসান সোহাগ ও পাটের জীবন রহস্য উন্মোচনকারী মাকসুদুল আলম।

এম. এস./১৭.৩৫
বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ৬৬০ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :