ব্রেকিং নিউজ:
২০১৭ সালে রয়েল বেঙ্গল টাইগার বিলুপ্তির আশংকা
হোসেন সোহেল    নভেম্বর ২৪, ২০১২, শনিবার,     ১২:২৮:৩২

 

সুন্দরবনের সবগুলো বাঘ ২০১৭ সালের মধ্যে বিলুপ্ত হয়ে যাবে। এমন ভয়াবহ তথ্য বেরিয়ে এসেছে বনবিভাগ ও ওয়াইল্ডলাইফ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ পরিচালিত এক জরীপে। এতে আরও বলা হয়েছে ২০০৭ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত সুন্দরবন থেকে ৬৯ ভাগ বাঘের সংখ্যা কমে গেছে। সুন্দরবনের ৮৫৩ কিমি এলাকায় এই জরীপ পরিচালনা করা হয়েছে।
বাংলাদেশে ২০০৭ সাল থেকে বন বিভাগ এবং ওয়াইল্ড লাইফ ট্রাস্ট মিলে ‘খাল সার্ভে’ নামে আরেকটি পদ্ধতি অনুসরণ করছে যা বিভিন্ন দেশের বাঘ বিশারদরা সমর্থন করেছেন। সুন্দরবনের ভেতরে প্রবাহিত খালের দু'পাশে বাঘের পায়ের ছাপ অনুসরণ করা হয় এই পদ্ধতিতে। পায়ের ছাপগুলো একই বাঘের কীনা তা পরীক্ষা করে বাঘের সংখ্যা অনুমান করা হয়। প্রায় ৫ বছর ধরে চলা (এখনও প্রকাশের অপেক্ষায়) ওই জরীপে এবার বেরিয়ে এসেছে ভয়ংকর সব তথ্য।
সুন্দরবনের ৮৫৩ কিমি এলাকার ‘খাল সার্ভে’ এর অপ্রকাশিত রিপোর্টে দেখা গেছে ২০০৭ সালে খালের আশেপাশে ১১২৭টি ‘টাইগার ট্রাক’ সনাক্ত হয়। এরপর ২০০৮, ২০০৯,২০১০,২০১১ এবং সর্বশেষ ২০১২ সালে পাওয়া যায় ২২৯টি টাইগার ট্রাকের সন্ধান। টানা পাচঁ বছরে এই জরীপে ৬৯ ভাগ বাঘের সংখ্যা কমে যাওয়ার কথা উঠে এসেছে।
বেসরকারি সংস্থা ওয়াইল্ড লাইফ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ ও বন বিভাগ যৌথ ভাবে ওই জরীপ চালালেও বন বিভাগ এই ফলাফল মানছে না। উভয় পক্ষই পাল্টাপাল্টি তথ্য দিচ্ছে। ওয়াইল্ড লাইফ ট্রাস্ট এর কর্মকর্তারা বলছেন, বছরে বাঘের সংখ্যা যদি একই হারে কমতে থাকে তাহলে আসছে পাচঁ বছর অর্থাৎ ২০১৭ সালের মধ্যে সুন্দরবনের রয়েলবেংগল টাইগার বিলুপ্ত হবে।
ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ খ্যাত সুন্দরবনের বাঘ কমে যাওয়ার প্রধান কারণ হিসেবে বাঘ হত্যাকেই দায়ী করা হয়েছে এই জরীপে। বাঘের প্রধান খাবার হরিণ হত্যা আর রোগশোক ও প্রাকৃতিক দূর্যোগকেও বাঘ কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।
এইচ.এস/এস.এম.বি/১২.০০




বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ২৬২৮ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :