ব্রেকিং নিউজ:
আশুলিয়ায় নিহতদের পরিচয় জানতে তেমন কেউ আসছেনা ডিএনএ ল্যাবে
নিউজ ডেস্ক    ডিসেম্বর ০৩, ২০১২, সোমবার,     ০৩:৪২:২৮

 


আশুলিয়ায় আগুনে পুড়ে লাশ হওয়া অজ্ঞাতদের পরিচয় বের করতে নিহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে তেমন একটা সাড়া পাচ্ছে না ডিএনএ ল্যাব কর্তৃপক্ষ। প্রতিদিন লাশের জন্য তাজরীন গার্মেন্টসের সামনে অনেক স্বজন হাজির হলেও ঢাকা মেডিকেল ফরেনসিক ল্যাবে তেমন কেউ আসছে না বলে জানা গেছে। ৫৩ টি বেওয়ারিশ লাশের নমুনা সংগ্রহ করা হলেও পাঁচ দিনে মাত্র তিনজনের স্বজন এসেছে।
তাজরীন ফ্যাশনের আগুনে পুড়ে যারা মারা গেছে তাদের কাউকেই লাশ দেখে চিহ্নিত করার উপায় ছিলোনা। স্বজনরাও যখন লাশ চিনতে ব্যর্থ হয়েছে তখন বেওয়ারিশ হিসেবে জুরাইন কবরস্থানে দাফন করা হয় তাজরীন গার্মেন্টেসের হতভাগ্য ৫৩ শ্রমিককে। এসব শ্রমিকের পরিচয় জানতে ডিএনএ পরীক্ষার উদ্যোগ নেয় সরকার। এজন্য দাফনের আগে মৃতদেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করেন ফরেনসিক বিভাগের কর্মকর্তারা।
জাতীয় ফরেনসিক গবেষণাগারের কারিগরী উপদেষ্টা শরীফ আখতারুজ্জামান জানালেন, ডিএনএ পরীক্ষার দ্বিতীয় ধাপে সংগৃহীত নমুনা থেকে এখন চলছে নমুনা বিশ্লেষনের কাজ। এরপর তৈরি করা হবে মৃত শ্রমিকদের ডিএনএ প্রোফাইল। মৃত দেহের হাড়,দাঁত কিংবা মাংসপেশীর টিস্যু বিশ্লেষন করে প্রতিটি নমুনার জন্য বানানো হচ্ছে আলাদা আলাদা প্রোফাইল।
কিন্তু পাঁচদিন পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত মাত্র তিনটি পরিবারের পক্ষ থেকে স্বজনরা তাদের নমুনা দিয়ে গেছেন। ফরেনসিক বিভাগের কর্মকর্তা মনে করছনে ডিএনএ পরীক্ষার বিষয়ে সাধারন মানুষের ধারনা না থাকায় কেউ নমুনা দিতে আসছেন না।
ল্যাব কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে কোন সময় ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডিএনএ পরীক্ষাগারে এসে নমুনা জমা দিতে পারবেন নিখোঁজ শ্রমিকদের স্বজনেরা। এতে প্রশাসনিক কোন জটিলতা থাকবে না। আর স্বজনদের নমুনা দেয়ার পর মৃতদের সাথে মিলিয়ে দেখতে প্রায় মাসখানেক সময় লাগবে বলে জানায় ডিএনএ ল্যাব কর্তৃপক্ষ।
এম.এম/এস.এম.বি/০৩.৪০
বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ৫২৪ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :