ব্রেকিং নিউজ:
মেট্রো রেল অর্থায়নে জাইকা’ কে প্রধানমন্ত্রীর তাগিদ
নিউজ ডেস্ক    ডিসেম্বর ০৪, ২০১২, মঙ্গলবার,     ০৩:১০:১৩

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজধানীর অসহনীয় যানজট নিরসনের লক্ষ্যে গুরুত্বপূর্ণ মাস র্যা পিড ট্রান্সপোর্ট (এমআরটি) বা মেট্রো রেল প্রকল্পে অর্থায়ন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে জাপানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা’র (জাইকা) সফররত ভাইস প্রেসিডেন্ট তোশিউকি কাইরোয়ানাগি মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ আহ্বান জানান।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকার এমআরটি প্রকল্পের আওতায় উত্তরা (৩য় পর্যায়) থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রো রেল নির্মাণের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছে। এটি মতিঝিল, মিরপুর, ফার্মগেট, শাহবাগ এবং তোপখানা রোডের ওপর দিয়ে যাবে। মেট্রো রেলের ১৫টি স্টেশন থাকবে।
সম্ভাব্য একক বিদেশী অর্থায়নকারী হিসেবে এ প্রকল্পে ৮০ শতাংশ ঋণ প্রদান করতে যাওয়া জাইকার অর্থায়ন ত্বরান্বিত করার জন্য জাপানের প্রতি শেখ হাসিনা আহ্বান জানান, যাতে শিগগির এর নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরু করা যায়।
মুখপাত্র বলেন, শেখ হাসিনা চলতি মাসের মধ্যে মেট্রোরেল সিস্টেম, ভেড়ামারা বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং জাতীয় বিদ্যুৎ সঞ্চালন নেটওয়ার্ক প্রকল্পের তিনটি চুক্তির সমন্বয়ে ৩৩তম বৈদেশিক উন্নয়ন সহায়তা (ওডিএ) স্বাক্ষরেও জাইকা’র সহায়তা কামনা করেন।
এছাড়া তিনি কাঁচপুর, মেঘনা ও গোমতি সেতু নির্মাণ ও সংস্কার, কর্ণফুলি পানি সরবরাহ প্রকল্প, বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের সমন্বিত উন্নয়ন প্রকল্প এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন প্রকল্পের চারটি চুক্তির সমন্বয়ে ৩৪তম ওডিএ ঋণ স্বাক্ষরে জাইকা’র সহায়তা চান।
তিনি বলেন, স্বাধীনতা লাভের পর থেকে জাপান বাংলাদেশকে এ যাবৎ মঞ্জুরী, ঋণ ও কারিগরি সহায়তা হিসেবে ৯শ’ কোটি ডলার সহায়তা দিয়েছে। যোগাযোগ, বিদ্যুৎ জ্বালানি, টেলিযোগাযোগ, স্বাস্থ্যসেবা, মানবসম্পদ, নগর ও পল্লী উন্নয়ন খাতে বাংলাদেশের যে অগ্রগতি, যে অর্জন, তাতে জাইকা’র অবদান গুরুত্বপূর্ণ।
প্রধানমন্ত্রী ২০১০ সালে তাঁর জাপান সফরকালে পদ্মা সেতু নির্মাণে জাইকা’র ৪০ কোটি মার্কিন ডলার প্রদানের প্রতিশ্রুতিরর কথা স্মরণ করে বলেন, ‘এই প্রকল্পে সহায়তার জন্য আমি জাইকা’কে ধন্যবাদ জানাই।’
এছাড়াও তিনি গত মাসে নগর ও পল্লী এলাকায় ভূ-গর্ভস্থ’ পানির অনুসন্ধান ও উন্নয়ন এবং প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্প-৩-এর খসড়া চুক্তির জন্য জাইকাকে ধন্যবাদ জানান।
এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরো জানান, তাঁর সরকার প্রশাসনের সকল পর্যায়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে জাতীয় সংহতি কৌশল (এনআইএস) অনুমোদন করেছে।
প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, এ্যাম্বাসেডর এ্যাট-লার্জ এম জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব শেখ মো. ওয়াহিদ উজ-জামান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মোল্লা ওয়াহেদুজ্জামান এবং প্রেস সচিব আবুল কালাম আজাদ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

এম. এস /১৯.১৫
বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ৫৬৭ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :