ব্রেকিং নিউজ:
ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ
নিউজ ডেস্ক    ডিসেম্বর ০৮, ২০১২, শনিবার,     ১২:৫৭:৫৯

 

পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২ উইকেটে হারিয়ে ৫ ম্যাচের সিরিজ ৩-২ ব্যবধানে জিতেছে বাংলাদেশ। আন্দ্রে রাসেলের করা ৪৪তম ওভারের শেষ বলে থার্ড ম্যান দিয়ে চার হাকিয়ে নাসির হোসেন নিশ্চিত করেন বাংলাদেশের বহু আরাধ্য এ জয়। বিজয়ের মাসে টাইগারদের এই অনন্য বিজয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধীদলীয় নেতা।
৪৪তম ওভারের পঞ্চম বলে নাসির কাভার অঞ্চলে বল পাঠালে চার হয়েছে ভেবে রান সম্পূর্ণ না করেই মাঝপথ থেকে জয়োল্লাস শুরু করেন ইলিয়াস সানি। কিন্তু বল পেরুয়নি সীমানা, আর ডিপ কাভার থেকে বল ফেরত পেয়ে পাওয়েল উপরে ফেলেন উইকেট। ওয়েস্ট ইন্ডিজ রান আউটের আবেদন জানালে জন্ম নেয় সাময়িক নাটকীয়তা আর বিশৃঙ্খলার।
অবশ্য এর পরের বলেই নাসিরের কাট শট উল্লাসে মাতিয়ে তোলে মিরপুর স্টেডিয়ামে জড়ো হওয়া হাজারো দর্শক আর দেশজুড়ে সিরিজ জয়ের আশায় টেলিভিশন পর্দায় চোখ রাখা কোটি মানুষকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় সিরিজ জয়। এর আগে ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে প্রথমবারের মতো সিরিজ জিতে তারা।
শনিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাটিং এ আমন্ত্রণ জানায় বাংলাদেশ। শফিউল, মমিনুল ও মাহমুদুল্লাহ’র বোলিং তোপে ৪৮ ওভারে ২১৭ রানে অলআউট হয়ে গেলে জয়ের জন্য ২১৮ রানের লক্ষ্য পায় টাইগাররা। জবাবে মুশফিক, মাহমুদুল্লাহ, আর নাসিরের ব্যাটিং নৈপূণ্যে ৬ ওভার হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।
ব্যাটিং-বোলিং দু জায়গাতেই কৃতিত্বের ছাপ রেখে দলের জয় নিশ্চিত করায় ম্যাচ সেরার পুরষ্কার জিতেছেন বাংলাদেশ সহ-অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
২১৮ রানের সামান্য লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইনিংসের শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। তৃতীয় ওভারেই ৪ বলের ব্যবধানে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম(৮) ও আনামুল (০) কে শিকার করেন ডান-হাতি পেসার কেমার রোচ। আর নবম ওভারের প্রথম বলে নাঈম ইসলামের বদলে খেলতে নামা জহুরুল ইসলাম(১০) রোচের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরলে বাংলাদেশ পড়ে যায় গভীর সংকটে। দলের স্কোর তখন ৩ উইকেটে মাত্র ৩০।
এর পর ব্যাটিং অর্ডারে প্রমোশন পেয়ে পাঁচ নম্বরে ব্যাট করতে আসা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ চতুর্থ উইকেটে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ৯১ রানের জুটি গড়ে স্বস্তি ফেরান বাংলাদেশ শিবিরে। অফস্পিনার সুনীল নারাইনের বলে বোল্ড হওয়ার আগে মাহমুদুল্লাহ করেন ৪৮ রান। তার ৪৫ বলের ইনিংসে ছিল ৭টি চারের মার।
২৫তম ওভারের প্রথম বলে দলীয় ১৩৩ রানে সুনীলের বলে বোল্ড হয়ে মুশফিকও বিদায় নিলে বাংলাদেশের উপর আবার চাপ বাড়তে থাকে। তবে ষষ্ঠ উইকেটে মমিনুল হকের সঙ্গে নাসির হোসেনের জুটি সামাল দেয় সে চাপ। দুজনে ১৪ ওভার অবিচ্ছিন্ন থেকে দলকে এনে দেন ৫৩ রানের মূল্যবান সংগ্রহ।
৩৯তম ওভারে দলীয় ১৮৬ রানে মমিনুলকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে এ জুটি ভাঙ্গেন সুনীল। ৫০ বল খেলে ৩টি চার মেরে মমিনুল করেন ২৫ রান।
সপ্তম উইকেটে সোহাগ গাজীর সঙ্গে নাসিরের ২৮ রানের আরেকটি জুটি দলকে সহজ জয়ের দিকে নিয়ে যায়। কিন্তু ৪৩তম ওভারে নিজের নবম ওভার করতে এসে পর পর দু’বলে দুই উইকেট তুলে নিয়ে স্বাগতিকদের ফের অস্বস্তিতে ফেলেন দেন রোচ।
ব্যক্তিগত ১৯ রানে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন সোহাগ। আর এর পরের বলেই আম্পায়ারের বিতর্কিত সিদ্ধান্তে আব্দুর রাজ্জাক সাজঘরে ফেরত গেলে ফের বিপদে পড়ে টাইগাররা। অফ-স্ট্যাপের অনেক বাইরে পড়া বলে দেয়া এলবিডব্লিউর সিদ্ধান্ত হতবাক করে দেয় সবাইকে। বাংলাদেশ তখন জয় থেকে মাত্র ৩ রান দূরে।
৪৪তম ওভারের শেষ বলে থার্ড ম্যান দিয়ে চার হাকিয়ে নাসির নিশ্চিত করেন বাংলাদেশের ম্যাচ জয় এবং একই সাথে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয় সিরিজ জয়। ৫২ বলের মোকাবেলায় ২টি চার আর ১টি ছক্কায় ম্যাচ-জেতানো ৩৯ রান করে অপরাজিত থাকেন নাসির।
ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলারদের মাঝে ডান-হাতি পেসার কেমার রোচ ৫৬ রান দিয়ে নেন ৫ উইকেট আর ৩৮ রান খরচায় অফস্পিনার সুনীল নারাইন নেন ৩ উইকেট । এ নিয়ে তিনবার পাঁচ উইকেট শিকার করলেন রোচ।
এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শফিউল ও সোহাগের মারাত্মক বোলিং তোপে মাত্র ১৭ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজ হারায় কাইরন পাওয়েল, মারলন স্যামুয়েলস ও ক্রিস গেইলকে।
তবে চতুর্থ উইকেটে ড্যারেন ব্রাভোরের সঙ্গে কাইরন পোলার্ডের ১৩২ রানের জুটি ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে যায় ৩ উইকেটে ১৪৯ রানের শক্ত অবস্থানে। ৩২তম ওভারে বল করতে এসে পঞ্চম বলেই পোলার্ডকে (৮৫) বোল্ড করে জুটি ভাঙ্গেন মমিনুল। পোলার্ডের ৭৪ বলের ইনিংসে ছিল ৮টি ছক্কা ও ৫টি চার।
ষষ্ঠ উইকেটে ডেভন টমাসকে নিয়ে ৩৭ রানের জুটি গড়েন ব্রাভো। ৪১ তম ওভারে মাহমুদুল্লাহ ৫ বলের মধ্যে ব্রাভো ও রানের খাতা খোলার আগেই আন্দ্রে রাসেলকে ফিরিয়ে দিলে বড় একটা ধাক্কা খায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ব্যক্তিগত ১৭ রানে নাসিরের হাতে জীবন পাওয়া ব্রাভো ১০৮ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় করেন ৫১ রান।
১৮৮ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলা ওয়েস্ট ইন্ডিজ দুশ পেরুয় টমাস ও বীরাসামি পারমলের সৌজন্যে। দলীয় ২০৪ রানে পারমল রান আউট হবার পর ৪৮তম ওভারে ৩ বলের মধ্যে টমাস ও রোচকে শফিউল বিদায় করলে ৪৮ ওভারে ২১৭ রানে অলআউট হয়ে যায় অতিথিরা।
৩১ রানে ৩ উইকেট নিয়ে মাশরাফি বিন মুতর্জার বদলে খেলতে নামা শফিউল ইসলাম হয়েছেন বাংলাদেশের সেরা বোলার। এছাড়া মমিনুল ও মাহমুদুল্লাহ দুটি করে উইকেট নেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ২১৭ (ব্রাভো ৫১, পোলার্ড ৮৫, টমাস ২৫; শফিউল ৩/৩১, মমিনুল ২/১৪, মাহমুদুল্লাহ ২/৩৮, সোহাগ ১/৩২)
বাংলাদেশ: ২২১/৮ (মুশফিক ৪৪, মাহমুদুল্লাহ ৪৮, নাসির ৩৯*, মমিনুল ২৫, সোহাগ ১৯; রোচ ৫/৫৬, সুনীল ৩/৩৮)

এম. এস./২২.৫০
বিভাগ: খেলাযোগ   দেখা হয়েছে ১৮২৬ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :