ব্রেকিং নিউজ:
অবরোধে ঢাকা ও সিরাজগঞ্জে দুইজনের মৃত্যু
নিউজ ডেস্ক    ডিসেম্বর ০৯, ২০১২, রবিবার,     ০২:১২:৪০

 

১৮ দলের অবরোধ কর্মসূচি পালনের সময় পুলিশের সাথে সংঘর্ষ ও ছাত্রলীগ কর্মীদের আঘাতে দুইজন মারা গেছে। রোববার সকালে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরে আওয়ামী যুবলীগ কর্মীদের সঙ্গে জামায়াতের সংঘর্ষে মারা গেছে জামায়াত কর্মী ওয়ারেছ আলী(৫৫)। নিহত ওয়ারেস সৈয়দপুর ইউনিয়ন জামায়েতে ইসলামীর বায়তুলমাল সম্পাদক। তার বাড়ি এনায়েতপুর থানার জালালপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামে।
তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওয়াহেদুজ্জামান। পুলিশে বলছে, রোববার সকালে অবরোধ কর্মসূচি পালন করতে জামায়াত মিছিল বের করে এনায়েতপুর থানা এলাকায় পৌঁছালে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাসহ পুলিশ তাদের মিছিলটিকে ধাওয়া করে। এ অবস্থায় ওয়ারেছ আলী মাটিতে পড়ে যান। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে খাজা ইউনুছ আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।
কিন্তু বেলকুচি জামায়াতের আমির রফিকুল ইসলাম সোহেলের দাবী, পুলিশ ও ক্ষমতাসীন দল ইচ্ছে করে অতর্কিত হমলা চালিয়ে তাদের কর্মীকে হত্যা করেছে। এদিকে অবরোধের সময় সকালে সিরাজগঞ্জের কড্ডার মোড়ে পুলিশের সঙ্গে ১৮ দলীয় জোটের নেতা কর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে।
এদিকে পুরান ঢাকার জজ কোর্ট এলাকায় ছাত্রলীগের অস্ত্রের আঘাতে বিশ্বনাথ দাস নামের এক পথচারী নিহত হয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ১৮ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধ কর্মসূচির সমর্থনে সকাল সোয়া নয়টার দিকে ঢাকা জজ কোর্ট এলাকা থেকে বিএনপি-জামায়াতের সমর্থিত আইনজীবীরা একটি মিছিল বের করে। মিছিলটি ভিক্টোরিয়া পার্কের কাছে গেলে সেখানে একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। এ সময় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও কবি কাজী নজরুল ইসলাম কলেজ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা আইনজীবীদের ধাওয়া করে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় পথচারী বিশ্বনাথ দাস দৌড়ে সেখানকার একটি ডেন্টাল ক্লিনিকে আশ্রয় নেন। তখন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ককটেল বিস্ফোরক সন্ধেহে তাঁকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। গুরুতর আহত অবস্থায় বিশ্বনাথকে এক রিকশাচালক পুরান ঢাকার মিডফোর্ড হাসপাতালে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তার মৃত্যু হয়।
এস.এম.বি/০১.৩০
বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ১৩৩৯ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :