ব্রেকিং নিউজ:
জহির রায়হানকে হত্যা করা হয়ঃ মুক্তিযোদ্ধা মোখলেসুর
নিউজ ডেস্ক    ডিসেম্বর ১৫, ২০১২, শনিবার,     ০৪:৩৬:৫৬

 


চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান অন্তর্ধান হননি, তাঁকে হত্যা করে হয়েছে বলে অনেকটাই নিশ্চিত আহত মুক্তিযোদ্ধা মোখলেসুর রহমান। মুক্তিযোদ্ধা মোখলেসুর রহমানের মতে, ভাই শহীদুল্লাহ কায়সারকে খুঁজতে গিয়ে অবাঙ্গালি আর আটকে পড়া পাকবাহিনীর হাতে জীবন দিতে হয়েছে স্টপ জেনোসাইডের নির্মাতাকে।
১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর, পুরো দেশে যখন লাল সবুজের পতাকা উড়ছিল তখন অবরুদ্ধ ছিল মিরপুর। অবাঙ্গালি আর আটকে পড়া পাক সৈন্যের অধীন মিরপুর মূলত স্বাধীন হয়েছিল ১৯৭২-এর ৩০শে জানুয়ারি।
অবসরপ্রাপ্ত ওয়ারেন্ট অফিসার মোখলেসুর রহমান একাত্তরে ৩ নং সেক্টরে যুদ্ধ করেছেন। ১৬ই ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে দেশ স্বাধীন হলেও অস্ত্র জমা দেননি দেননি এই যোদ্ধা। কারণ তখনও মিরপুর হানাদারমুক্ত হয়নি। মিরপুরেই পায়ে গুলি লেগে আহত হন তিনি।
মোখলেসুর রহমান জানান, ৩০ শে জানুয়ারি মুক্তি বাহিনীর একটি কোম্পানির সঙ্গে ভাই শহীদুল্লাহ কায়সারের খোঁজে এসেছিলেন জহির রায়হান। এরপর আর ফেরা হয়নি তাঁর। সবাই ধরে নেই জহির রায়হান হারিয়ে গেছেন কিংবা তাঁকে গুম করা হয়েছে। ঢাকায় গণহত্যার ৭০ টি জায়গার মধ্যে মিরপুরেই ছিল তেইশটি। এখানেই বাবাকে হারিয়েছেন রোকাইয়া হাসিনা নিলী। তার বাবা রাশীদুল হাসান ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক। দেশ স্বাধীন হবার৪১ বছর পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায়ের অপেক্ষায় যখন গোটা জাতি তখন মিরপুরে ভাইকে হারানো ডা. এম এ হাসান দাবি করছেন অবাঙ্গালি খুনিদের বিচার। শুধু তারা নন এ দাবি আজ এ দেশের তরুণ প্রজন্মেরও।

পি.এস/এস.এম.বি/০৪.৪০
বিভাগ: সংবাদ সংযোগ   দেখা হয়েছে ৬৫৬ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :