ব্রেকিং নিউজ:
সরকারি ভাতা বঞ্চিত ৫৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধা
নিউজ ডেস্ক    ডিসেম্বর ১৬, ২০১২, রবিবার,     ০৯:৩৭:০১

 

তালিকায় থাকা প্রায় ৫৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধা সরকারের কোন ভাতা পায় না। নতুন তালিকা অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা দুই লাখেরও বেশি। এদের মধ্যে দেড় লাখকে মাসিক দুই হাজার টাকা করে ভাতা দেয়া হচ্ছে।
খেটে খাওয়া মানুষ থেকে শুরু করে স্বচ্ছল পরিবার, মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। তাদের সংখ্যা কত তা জানতে এ পর্যন্ত তালিকা করা হয়েছে পাঁচটি। কিন্তু স্বাধীনতার ৪১ বছর পরেও অবহেলিত থেকে গেছে দেশের জন্য জীবন বাজি রাখা মুক্তিযুদ্ধাদের অনেকেই। অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটানো এসব বীর যোদ্ধাদের অনেকেই পায়নি তাঁদের স্বীকৃতি। তাঁদের মাঝে কারও ভাগ্যে প্রাপ্য সম্মান জুটলেও বেশিরভাগই বঞ্চিত থেকেছেন। এবিষয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ বি তাজুল ইসলাম বলছেন, বিভিন্ন সময় তালিকায় কিছু 'ভুয়া' নাম ঢুকে গেছে। এতে করেই প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সুনির্দিষ্ট তালিকা এখনো তৈরি করা যায়নি।
সামরিক শাষক এরশাদের শাসনামলে প্রথম মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা করা হয়। সেই তালিকা অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ছিল এক লাখ দুই হাজার ৪৫৮ জন। এরপর ১৯৯৬ সালে তৎকালীন আওয়ামী লীগে সরকারও মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা করে। আর বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের করা তালিকায় এই সংখ্যা বেড়ে হয় দুই লাখের কাছাকাছি। তবে এই তালিকায় অনেক ভূয়া মুক্তিযোদ্ধার নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী ক্যাপ্টেন (অব) এ বি তাজুল ইসলাম। পাশাপাশি তিনি জানান সরকারের করা মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নাম আছে ২ লাখ ৪ হাজার ৮০০ জনের।
বর্তমান সরকারের তৈরি মুক্তিযোদ্ধাদের তালীকায় যাদের তাদের মধ্যে প্রায় ৫৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধা এখনো কোন ভাতা পায় না। শুধু তাই নয় ৪১ বছর পরও অনেকেরই মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি মেলেনি। এসব মুক্তিযোদ্ধা অভিযোগ করে বলেছেন দেশের জন্য তাঁরা যুদ্ধ করেছেন, জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করেছেন তার একটা স্বীকৃতি নিশ্চয় তাঁরা আশা করেন। তাঁদের অভিযোগ, দেশে রাজাকারদের মন্ত্রী বানানো হয় কিন্তু যাঁরা যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছে তাঁদের কোনো খোঁজ কেউ নিতে আসেনা।
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ বি তাজুল ইসলাম আরো জানান, ভাতা পাওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা তারা এক থেকে বাড়িয়ে দেড় লাখ করেছেন। ভাতার পরিমাণও ৯'শ থেকে দুই হাজার টাকা করা হয়েছে। এছাড়াও তালিকায় থাকা ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের নাম বাদ দেয়ার পাশাপাশি সবাই যেনো ভাতার আওতায় আসে সে চেষ্টা করছে সরকার।

এস.এম.বি/০৪.১০
বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ১১৪০ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :