ব্রেকিং নিউজ:
সংঘাত ছাড়লেই বিএনপির সঙ্গে আলোচনা: আশরাফ
    জানুয়ারী ১২, ২০১৪, রবিবার,     ১১:০৪:১০

 

সংঘাতের পথ ছেড়ে সমঝোতায় আসলেই বিএনপির সঙ্গে আলোচনা করে একাদশ নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব বলে জানিয়েছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সেইসঙ্গে নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীরা মনে করেন জনগণের নিরাপত্তা, সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দূর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়াই হবে নতুন সরকারের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। রোববার শপথগ্রহণের পরপরই তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সরকার ও নিজেদের ভাবনার কথা জানান নতুন সরকারের মন্ত্রীরা।
বিএনপির সঙ্গে যেকোনো সময়ই আলোচনা হতে পারে এবং তার ভিত্তিতে অনুষ্ঠিত হতে পারে একাদশ সংসদ নির্বাচন বলেও জানান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।
তবে আলোচনার ব্যাপারে কিছু শর্ত জুড়ে দিয়ে আশরাফ বলেন, ‘এ সরকার নির্বাচিত হয়েছে পাঁচ বছরের জন্য কিন্তু আলোচনার জন্য পাঁচ বছর ইজ নট দ্য কন্ডিশন। যখনি আপনার আলোচনা হবে, যখনি সমঝোতা হবে তখনি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এখনি আপনার সকল ধরনের সংঘাত বন্ধ করতে হবে, ভাঙচুর বন্ধ করতে হবে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনি বন্ধ করতে হবে। যেমন সরকার পরিবেশ সৃষ্টির দায়িত্বে তেমনি বিরোধীদেরও সেই দায়িত্ব রয়েছে।’
এ সময় সমঝোতার বিষয়ে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘দেশে সঙ্কট আছে, সঙ্কট হয়তো ভবিষ্যতেও থাকবে এ সঙ্কটের মধ্য দিয়েই আমাদের অগ্রসর হতে হবে। এই রকম একটি প্রত্যয় আমাদের মধ্যে কাজ করে এবং করবে। জনসভায় উনি (শেখ হাসিনা) স্পষ্ট করে বলেছেন যে আলোচনার দরজা সব সময় খোলা এবং আমি মনে করি আলোচনার মধ্যমে যেকোনো সমস্যার সমাধান হতে পারে।’
এদিকে, সংসদে বিরোধীদল জাতীয় পার্টি (জাপা) থেকে মন্ত্রীত্ব পাওয়া আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, একইসঙ্গে বিরোধীদল ও সরকারের মন্ত্রীর দায়িত্ব পালনে কোন বাধা নেই।
তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় না কোনো সমস্যা হবে। এখন ন্যাশনাল কাস্ট চলছে, এখানে যদি আমরা এক যোগে কাজ করি তাহলে কোনো অসু্বিধানেই।’
জনগণের নিরাপত্তা, সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দূর্ণীতিমুক্ত দেশ গড়াই হবে নতুন সরকারের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলে জানিয়েছেন ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন।
মেনন বলেন, ‘আমাদের সামনে অসম্প্রদায়িক গণতান্ত্রী দেশকে সমৃদ্ধ দেশ গড়ার কাজ হাতে রয়ে গেছে। সেই যুদ্ধে আমাদের জয় লাভ করতে হবে।’

মাহবুব সাঈফ/ ১৬: ৩৫
বিভাগ: শীর্ষ সংবাদ   দেখা হয়েছে ১৬৩৬ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :