ব্রেকিং নিউজ:
অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ভবিষ্যৎ
অনন্য নন্দিতা    জুন ২৫, ২০১২, সোমবার,     ০৯:৪৪:০৮

 

একের পর এক অবরোধ আর আলোচনার মধ্যে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ভবিষ্যৎ। পশ্চিমা বিশ্বের চাপে বারবার আলোচনার টেবিলে বসলেও বিষয়টির কোনো সুরাহা হচ্ছেনা। তার ওপর ইসরায়েলের হামলার হুমকিও আছে।
পরমাণু অস্ত্র তৈরির প্রধান উপাদান ইউরেনিয়াম। টানা ১৮ বছর ধরে এই ইউরেনিয়ামই সমৃদ্ধ করছে ইরান। আর্ন্তজাতিক শক্তি সংস্থা আই.এ.ই.এ. এর আশঙ্কা,কোমশহরের পরমাণু কেন্দ্রে মোট ২৭ ভাগ ইউরেনিয়াম শোধন করেছে ইরান। তাই পরমাণু কেন্দ্র পরিদর্শনের প্রস্তাব করছে তারা।
ইয়োকিও আমানো বলেন, আইএইএ পর্যবেক্ষকদের পরমাণু কেন্দ্র পরিদর্শনের সুযোগ দিতে হবে। পাশাপাশি পরমাণু কার্যক্রমের তথ্য প্রমাণ দেখানোর প্রস্তাব করা হয়েছে ইরানকে।
ইউরেনিয়াম পরিশোধনের মাত্রা কিছুটা বেড়ে যাওয়ার পেছনে,যান্ত্রিক ত্রুটিকেই একমাত্র কারন বলছেন, ইরানের পরমাণু শক্তি সংস্থার প্রধান সাঈদ জালিলি। তাঁর দাবি, এটা নিয়ে পশ্চিমা বিশ্ব অযথাই মাতামাতি করছে।
ক্ষুব্ধ জালিলির অভিমত, ইরানকে নিয়ে বেশিরভাগ অভিযোগই অবৈধ ও অনৈতিক। আমাদের মতে, জাতিসংঘের প্রস্তাবও ভিত্তিহীন। এটা প্রমান করতে আইএইএ কে তথ্য প্রমান দেখিয়েছি আমরা।
সমৃদ্ধ করা ইউরেনিয়াম যেমন জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করা যায়,তেমনি পরমাণু বোমাও বানানো যায়। ইরান বরাবরই বলেছে, জ্বালানী তৈরীই তাদের মূল লক্ষ্য। আর পশ্চিমা বিশ্বের অভিযোগ,জ্বালানীর আড়ালে হয়তো পরমাণু বোমাই বানাচ্ছে দেশটি।
শুধুমাত্র এমন সন্দেহের বশেই ২০০৬ সাল থেকে আন্তর্জাতিক অবরোধের মুখে ইরান। সবশেষ ২০১২ সালে, তেল বানিজ্যের উপর আসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা।
সমৃদ্ধ করা ২৭ শতাংশ ইউরেনিয়াম,ইরান সত্যিই বোমা বানানোর কাজে ব্যবহার করছে কিনা,এনিয়ে নিশ্চিত কোন তথ্য নেই কারো কাছে।
ইসরায়েলও বলছে তারা এখনো নিশ্চিত নয়। কোন প্রমান নেই যুক্তরাষ্ট্রের হাতেও। তাই ইরানকে থামাতে, ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করা বন্ধ করতে চায় পশ্চিমা বিশ্ব। আর এখানেই কুটনৈতিক জটিলতা।

অনন্য নন্দিতা/মাহবুব সাঈফ/বিশ্বযোগ/২০:২৮
বিভাগ: বিশ্বযোগ   দেখা হয়েছে ১২৩৭ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :