ব্রেকিং নিউজ:
প্রেসিডেন্ট প্যালেসে মুরসি
হাসানুর রহমান    জুন ২৬, ২০১২, মঙ্গলবার,     ১২:৪৪:৩৬

 

জাতীয় ঐক্য গড়ার চ্যালেঞ্জ নিয়ে মিশরে সরকার গঠনের কাজ শুরু করেছেন নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি। সোমবার প্রথমবারের মতন প্রেসিডেন্ট প্যালেসে যান মুরসি। জাতীয় ঐক্য আর সেনাবাহিনীর ক্ষমতা কমানোর মতো বেশ কিছু কঠিন চ্যালেঞ্জ নিয়ে ক্ষমতায় বসতে যাচ্ছেন মুহাম্মদ মুরসী। বিশ্লেষকরা বলছেন, তাঁর জন্য সবচে বড় চ্যালেঞ্জ হবে সেনাবাহিনীর হম্তক্ষেপ মুক্ত একটি নির্বাহী বিভাগ গড়ে তোলা। তাঁর সরকারকেই প্রণয়ন করতে হবে গণতান্ত্রিক মিসরের সংবিধান। আস্থা গড়তে হবে খৃষ্টানদের মতো সংখ্যালঘু নাগরিকদের মধ্যেও।
মুরসির নির্বাচনী প্রচারণা অভিযানের এক মুখপাত্র বলেন, খুব শিগগিরই পুরো মন্ত্রীসভার নাম ঘোষণা করবেন মুরসি। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজনের নাম বিবেচনা করা হচ্ছে বলেও জানান ওই মুখপাত্র।
এদিকে, গত সোমবার সেনানিয়ন্ত্রিত অন্তবর্তী সরকারের সুপ্রীম কাউন্সিলের নিয়োগ করা মন্ত্রীসভা পদত্যাগ করেছে। তবে নতুন প্রেসিডেন্ট পুরোপুরি দায়িত্ব বুঝে না নেয়া পর্যন্ত তত্ত্বাবধায়কের কাজ করবে এ মন্ত্রীসভা।
গোটা মিশর আজো উৎসবের নগরী। বিজয়ের পর রাত জেগে চলেছে আনন্দ-উল্লাস। মানুষের উৎসব যেনো শেষ হবার নয়। রাস্তায় রাস্তায় বিজয় জনতার বাঁধভাঙ্গা মিছিল। তবে বিজয় উৎসবও রূপ নিয়েছে দাবি আদায়ের সমাবেশে। প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা বাড়িয়ে, সেনা শাসনের ভূতকে আস্তাকুঁড়ে ফেলার দাবি জনতার।
বিজয়ের পর মিসরের ভাবি প্রেসিডেন্ট মুরসির কাঁধে এখন প্রত্যাশার বিশাল চাপ। নির্বাহী বিভাগের নানা কাজে সেনাবাহিনীর অদৃশ্য প্রভাব। সেনাবাহিনীকে প্রভাবমুক্ত রাখাটাকেই মুরসির জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠবে।
আহরাম রিজিওনাল ইনস্টিটিউট ফর জার্নালিজম এর পরিচালক হাসান আবু তালেব বলেন, 'প্রেসিডেন্ট মুরসি রাজনৈতিক একত্রীকরণে আগ্রহী। আমি মনে করি, তিনি সুপ্রিম কাউন্সিলের সাথে কোনো সংঘাতে যাবেন না, অন্তত এখনই না। '
অবশ্য সেনাবাহিনী নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি মিসরের ভাবি প্রেসিডেন্ট মুরসি। তবে দেশের সংখ্যালঘুদের অভয় দিয়ে তিনি বলেছেন, সব মত আর সব পথের মানুষকে নিয়ে, ঐক্যবদ্ধ এক নতুন মিসর গড়ে তুলবেন তিনি।

এস. আর./ এম. এস./ বিকেল ৫.২০
বিভাগ: বিশ্বযোগ   দেখা হয়েছে ৫৭৮ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :