ব্রেকিং নিউজ:
টাকার মান কমে যাওয়ার প্রভাব পড়ছে মূল্যস্ফীতিতে
শামীমা দোলা    জুলাই ০৮, ২০১২, রবিবার,     ০২:০৭:১৮

 

বিদায়ী অর্থবছরে আগের বছরের চেয়ে রেমিটেন্স বেড়েছে দশ শতাংশ। কিন্তু ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমে যাওয়ায় শংকা প্রকাশ করছেন অর্থনীতিবিদরা। তাদের মতে, মূল্যস্ফীতি, আমদানি, বিনিয়োগসহ অর্থনীতির প্রায় সব ক্ষেত্রেই টাকার দুর্বল হওয়ার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।
দেশের অর্থনীতিতে বড়ো অবদান রাখছে প্রবাসীদের পাঠানো অর্থ। ২০১১-১২ অর্থবছরে এক হাজার ২৮৫ কোটি ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা আগের অর্থবছর থেকে একশো বিশ কোটি ডলার বেশি। কিন্ত এক বছরে ডলারের বিপরীতে টাকার দর পড়েছে ১১ শতাংশেরও বেশি। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এর প্রভাব পড়ছে মূল্যস্ফীতিতে।
বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষনা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) এর গবেষণা পরিচালক জায়েদ বখত বলেন, “আমাদের অর্থনীতি আমদানি নির্ভর হওয়ায় এটা মূল্যস্ফীতিকেই উস্কে দেবে। ডলারের দর বাড়ায় আমদানি কমেছে শিল্প খাতের মূলধনী যন্ত্রপাতির। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বিনিয়োগে”।
তিনি আরো বলেন, “ডলারের দাম বাড়ায় আমদানি ব্যয় অনেক বেড়ে গেছে। ফলে শিল্পদ্যোক্তরা মূলধনী যন্ত্রপাতি (ক্যাপিটাল মেশিনারি) ও শিল্পের কাঁচামাল আমদানি কমিয়ে দিয়েছেন। এতে শিল্প উৎপাদন কমে যাবে পাশাপাশি কমবে শিল্প খাতের প্রবৃদ্ধি”।
অন্যদিকে এর ইতিবাচক প্রভাব পড়ছে রপ্তানি আয় এবং প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের ওপর।
অর্থণীতিবিদ মামুন রশীদ বলেন, “এর ফলে রপ্তানিকারকেরা বেশি টাকা পাচ্ছেন প্রতি ডলারে। এছাড়াও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের বিপরীতে তাদের স্বজনরাও টাকা বেশি পাচ্ছেন”।
তবে দুই অর্থনীতিবিদই বলছেন, টাকার বিপরীতে ডলার যেন আরো বেশি শক্তিশালী না হয়ে ওঠে সেদিকে নজর দিতে হবে সরকারকে।


এস.ডি/এ.আর/১২.২৪
বিভাগ: দেশযোগ   দেখা হয়েছে ১৩১১ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :