ব্রেকিং নিউজ:
কারাগার এখন বিনোদনকেন্দ্র!
নিউজ ডেস্ক    আগষ্ট ১৩, ২০১২, সোমবার,     ০৪:৪৬:২৩

 

পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান করলো যুক্তরাষ্ট্রের কুখ্যাত অ্যালকাট্রাজ কারাগারের সাবেক কয়েদীরা। পরিবার-পরিজন নিয়ে কারাগারটি ঘুরে দেখা আর পুরোনো স্মৃতিরোমত্থনে মুখর ছিল তারা। কারাজীবনের স্মৃতি নিয়ে বইও লিখেছেন কোন কোন বন্দী। এক সময়ের সেই কারাগার এখন আকর্ষনীয় এক পর্যটন কেন্দ্রে পরিনত হয়েছে।
জনবিচ্ছিন্ন এক দ্বীপ অ্যালকাট্রাজ। এটি আবিষ্কার করা হয় ১৭৭৫ সালে। ১৮৫০ থেকে ১৯৩৩ সাল পর্যন্ত এই দ্বীপকে ব্যবহার করা হয় মার্কিন সামরিক বাহিনীর কারাগার হিসেবে। ১৯৩৩ থেকে পরের তিন দশক অ্যালকাট্রাজ হয়ে ওঠে ফেডারেল কারাগার। সেখানে রাখা হয় যুক্তরাষ্ট্রের সব ভয়ংঙ্কর অপরাধীদের। তবে ১৯৬৩ সালে বন্ধ করে দেয়া হয় এ কারাগার। এর এক দশক পর ৭৩ সালে দর্শনীয় স্থান হিসেবে খুলে দেয়া হয় ঐতিহাসিক এ কাগারকে।
কারাগার থেকে মুক্তির পর আবার কারাগারে ফিরে এসেছে তার বন্দীরা। তবে এবার বন্দি হিসেবে না এসেছে ফেলে আসা ভয়াবহ দিনগুলোকে মনে করতে।
এমন একজন পুরনো কয়েদী রবার্ট লিউক। বহুবছর পর আবার এখানে এসে যেন ফিরে পেলেন হারানো দিনগুলো। জানালেন, ‘যখন আপনি সেখানে থাকবেন, তখন আপনি বিশ্ব থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন। সেখানে কোন সংবাদপত্র, কোনো টেলিভিশন, রেডিও কিছুই নেই। ৫ বছর পর যখন মুক্তি পেলাম, মনে হল আমি এক নতুন পৃথিবীতে এসেছি।’
শুধু জনবিচ্ছিন্নই ছিলোনা এ কারাগার। এখানে দেয়া হতো সবচেয়ে নির্দয় শাস্তি। আর বন্দীদের রাখা হতো খুবই ছোট কক্ষে। এই কারাগারই এখন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম আকর্ষণীয় ট্যুরিস্ট স্পট। প্রতিবছর অ্যালকাট্রাজ দেখতে আসে অন্তত ১৩ লাখ মানুষ।
এস.আর/এস.এম.বি/০৪.৪৫

বিভাগ: বিশ্বযোগ   দেখা হয়েছে ৬০০ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :