ব্রেকিং নিউজ:
জেএমবি'র বোমা হামলার ৭ বছর;নির্মূল হয়নি জঙ্গিবাদ
পারভেজ রেজা    আগষ্ট ১৭, ২০১২, শুক্রবার,     ০২:৩১:২৪

 

আজ ১৭ই আগস্ট। ২০০৫ সালের এই দিনে ৬৩ জেলায় এক যোগে বোমা ফাটিয়ে দেশে জঙ্গি তৎপরতার ঘোষণা দেয় জামায়াতুল মুজাহেদীন বাংলাদেশ-জেএমবি। পরে নিষিদ্ধ সংগঠনটির শীর্ষ নেতাদের বিচারের মুখোমুখি করা হলেও তৎপরতা থেমে নেই তাদের। তবে পুলিশ মহাপরিদর্শক দাবি করেছেন ধর্মীয় জঙ্গিবাদ এখন নিয়ন্ত্রনে আছে।
২০০৫ সালের ১৭ই আগস্ট মুণ্সিগঞ্জবাদে দেশের সব জেলায় সকাল সাড়ে দশটা থেকে এগারোটার মধ্যে ৫০০টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জেএমবি জানান দেয় তাদের শক্তিমত্বার কথা। এই বোমা হামলায় এক শিশুসহ নিহত হয় দুই জন। বোমার সাথে রেখে যাওয়া লিফলেটে আল্লাহর আইন বাস্তবায়ন ও সব বিচারককে তওবা করে শরীয়া আইন অনুযায়ি বিচার করার কথা বলা হয়।
এর তিন মাসের মধ্যে চাদপুর,লক্ষ্মীপুর,চট্টগ্রাম ও ঝালকাঠিতে আদালতে হামলা চালায় জেএমবি। ঝালকাঠিতে মারা যান সিনিয়র সহকারি জর্জ সোহেল আহমেদ চৌধুরি ও জগন্নাথ পাঁড়ে। এই সময় দেশের বিভিন্ন জায়গায় জেএমবির হামলায় মারা যায় অন্তত ৫০ জন।
এই ঘটনায় মৃত্যুদন্ড হয় জেএমবি প্রধান শায়খ আব্দুর রহমান,সিদ্দিকুর ইসলাম ওরফে বাংলা ভাই,আতাউর রহমান সানি,আব্দুল আওয়াল,ইফতেখার মামুন ও খালেদ সাইফুল্লাহর। কিন্তু এরপরও থেমে নেই জঙ্গিদের তৎপরতা। তবে পুলিশ মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার জানিয়েছেন,আগের তুলনায় দেশে এখন জঙ্গিদের কার্যক্রম নেই। এমন যেকোন ধরণের রাষ্ট্রীয় অপতৎপরতা মোকাবেলা করতে তারা প্রস্তুত আছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
জঙ্গিবাদের উত্থানের পেছনে বিগত সময়কার রাষ্ট্রীয় সহায়তায় অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ মহাপরিদর্শক বলেন,সে সময় জঙ্গিদের তৎপরতা রাষ্ট্রের জন্য হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছিল।আর এধরণের অপশক্তির পেছনে রাষ্ট্রের মদদ থাকলে তাদের নিয়ন্ত্রন করা কঠিন হয়ে পড়ে।
তবে বর্তমানে জেএমবির চাইতে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন হিজবুত তাহরির নিয়ে আইন শৃংখলা বাহিনী বেশি চিন্তিত বলে জানিয়েছেন আইন শৃংখলা বাহিনীর কর্মকর্তরা।
এস.এম.বি/০২.২০


বিভাগ: প্রধান সংবাদ    দেখা হয়েছে ১১৬০ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :