ব্রেকিং নিউজ:
দেশজুড়ে ঈদের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন
নিউজ ডেস্ক    আগষ্ট ২০, ২০১২, সোমবার,     ০৬:৩৭:৫০

 

সারাদেশে উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর। শ্রেণীভেদ ভুলে আনন্দে মেতে উঠেছে সবাই।
বৃষ্টি মাথায় নিয়েই শাহী ঈদগাহ ময়দানে ঈদের সবচেয়ে বড় জামাতে অংশ নেয় সিলেটের মানুষ। এখানে সকাল আটটায় প্রথম জামাত শেষে দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এছাড়া সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা,হযরত শাহজালাল ও হযরত শাহপরান(রহঃ)মাজারের ঈদগাহ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
চট্টগ্রামের বৃষ্টি ছিল ঈদের ঈদের নামাজের সময়। সকাল সাড়ে আটটায় ঈদের প্রধান জামাত হয় জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদে। বৃষ্টির কারনে হাজার হাজার মানুষ মসজিদের ভেতরে নামাজ পড়েন। এছাড়াও চট্টগ্রামের পাঁচটি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
খুলনার সবচেয়ে বড় নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে সার্কিট হাউজ মাঠে। সকাল সাড়ে আটটায় এ জামাতে অংশ নেয় প্রায় ৫০ হাজার মুসল্লি। নামাজ শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামণা করে দোয়া করা হয়।
রাজশাহীতে সকাল সাড়ে আটটায় প্রধান জামাত হয় হযরত শাহ মখদুম কেন্ত্রীয় ঈদগাহ মাঠে। নামাজ শেষে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামণায় দোয়া করা হয়। নগরীর দ্বিতীয় বৃহত্তম জামাত হয় সকাল পৌনে ন’টায় সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে।
বরিশালে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে আটটায়, বান্দরোডের হেমায়েত উদ্দিন ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এখানে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র,জেলা প্রশাসকসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিরা একসাথে ঈদের নামাজ আদায় করেন।
রংপুরে ঈদের প্রধান জামাত হয় সকাল ন’টায় কালেক্টরেট ঈদগাহে। প্রায় ২৫ হাজার মানুষ নামাজ আদায় করে এ জামাতে। তবে এ এলাকার সবচেয়ে বড় জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে গঙ্গাচড়ার তালুকহাবু ঈদগাহ মাঠে।
কুমিল্লায় ঈদের প্রধান জামাত হয়েছে কেন্দ্রীয় ঈদগাহে। রাজনৈতিক নেতাসহ প্রায় ৩০ হাজার মানুষ এ জামাতে অংশ নেন। এছাড়া জেলার বড় ঈদের জামাত হয় বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার সেতুবন্ধন ঐতিহাসিক দরিয়ার পাড় ঈদগাহ ময়দানে। নারায়ণগঞ্জে সকাল আটটায় ঈদের প্রধান জামাত হয়েছে জামতলা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ্ মাঠে। সকাল সাড়ে আটটায় আরেকটি জামাত হয় শহরের খানপুর রোডে।
সাভারের সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত হয় সাভার বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মাঠে। সকাল আটটায় প্রথম জামাতে অংশ নেয় কয়েক হাজার মানুষ। এছাড়া আশুলিয়ার টঙ্গাবাড়িতে আরেকটি বড় ঈদ জামাত হয়েছে।
সকাল ন’টায় মানিকগঞ্জের ঈদের প্রধান জামাত শহীদ মিরাজ তপন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া একই সময় দশড়া সিদ্দিকিয়া দরবার শরীফ, আফতাবিয়া জামে মসজিদ, রাজা মিয়া জামে মসজিদ, বাসষ্ট্যান্ড জামে মসজিদে ঈদের জামাত হয়েছে।
বৃষ্টির কারনে যশোরে ঈদের প্রধান জামাত কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানের বদলে জর্জকোর্ট জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। এখানে সকাল আটটায় প্রথম এবং সকাল ন’টায় দ্বিতীয় জামাত হয়েছে।
বান্দরবান কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে সকাল সাড়ে আটটায় ঈদের প্রথম জামাত হয়। পরে দেশবাসীর পাশাপাশি প্রয়াত বোমাং রাজা অংশৈপ্রু চৌধুরীর আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া করা হয়।
বগুড়ায় ঈদের প্রধান জামাত হয়েছে সুত্রাপুর কেন্দ্রীয় ঈদগাহে। এছাড়া কর্নেশন স্কুল এন্ড কলেজ ,বগুড়া পুলিশ লাইন, বগুড়া ক্যান্টনম্যান্টের দুটি মাঠে।
কুড়িগ্রামে পুরাতন শহর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ এবং আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে সকাল সাড়ে ন’টায় এবং নতুন শহর ঈদগাহ মাঠে সকাল ন’টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
বাগেরহাটে ঐতিহ্যবাহী ষাটগম্বুজ মসজিদে দক্ষিণাঞ্চলের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মানুষ এখানে ঈদের নামাজ আদায় করেন।
এস.এম.বি/০৬.৩০






বিভাগ: দেশযোগ   দেখা হয়েছে ১১২২ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :