ঢাকা ০৪ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯

আমেরিকাকে হটিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দেশ চীন

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ১৬ নভেম্বর ২০২১ ১৯:৫৯:২১ আপডেট: ১৬ নভেম্বর ২০২১ ২০:০০:১৭
আমেরিকাকে হটিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দেশ চীন

গোটা যখন করোনা মহামারীর বিরুদ্ধে জোর লড়াই আর অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে ব্যস্ত, তখন এই ভাইরাসটিতে শক্ত হাতে নিয়ন্ত্রণ করে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী রাষ্ট্রের মর্যাদায় বসে গেছে চীন।

বিশ্ব অর্থনীতির ৬০ শতাংশের বেশি দখলে রাখা শীর্ষ ১০ ধনী দেশের আয়-ব্যয়, তথা সামগ্রিক অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে সম্প্রতি সমীক্ষা চালিয়েছিল আন্তর্জাতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ম্যাকিনসে অ্যান্ড কোম্পানি। গত সোমবার (১৫ নভেম্বর) প্রকাশ করা হয়েছে সেই সমীক্ষার ফল।

সেই ফলে, আমেরিকাকে পেছনে ফেলে প্রথম স্থান নিশ্চিত করেছে চীন। প্রতিষ্ঠানটির প্রকাশিত ব্যালেন্স শিটে দেখা গিয়েছে মোট আন্তর্জাতিক আয়ের ৬০ শতাংশ চীনের দখলে। শেষ দুই দশকে দেশটির আন্তর্জাতিক সম্পদ তিনগুণ বেড়েছে। যা রীতিমতো বিষ্ময়কর।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, গত দুই দশকে বিশ্বের সম্পদ বৃদ্ধি পেয়েছে তিনগুন। এর মধ্যে শীর্ষে আছে চীন। দ্বিতীয় অবস্থানে যুক্তরাষ্ট্র। ২০০০ সালের বিশ্বের নিট সম্পদ ১৫৬ ট্রিলিয়ন থেকে ২০২০ সালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫১৪ ট্রিলিয়ন ডলারে।

জার্মানির জুরিখ থেকে ম্যাকিনসে গ্লোবালের অংশীদার জ্যান মিসকে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘এই মূহুর্তে অতীতের সব রেকর্ড ছাপিয়ে চীন সব থেকে বেশি সম্পদের অধিকারী।’

২০০০ সালে চীনের সম্পদের পরিমাণ ছিল সাত ট্রিলিয়ন ডলার। তা আকাশচুম্বী গতিতে বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ১২০ ট্রিলিয়ন ডলার। 

আর যুক্তরাষ্ট্রে সম্পত্তির দাম নিঃশব্দে বেড়ে যাওয়ার কারণে ধনী দেশের তালিকা থেকে পিছিয়ে পড়েছে। তাদের নিট সম্পদ এ সময়ে দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৯০ ট্রিলিয়ন ডলার।

ম্যাককিনসের মতে, গেল দু’দশকে মোট সম্পদের পরিমাণের বৃ্দ্ধি মোট উৎপাদনের পরিমাণকে ছাপিয়ে গিয়েছে। এবং সুদের হার ক্রমে কমে যাওয়ার কারণে সম্পত্তির দাম তুলনামূলকভাবে বৃ্দ্ধি পেয়েছে।

আরও পড়ুন: কৃষ্ণসাগরে যুক্তরাষ্ট্রের মহড়া, ম্যাঁখোকে পুতিনের ফোন

প্রতিবেদনে দেখা গিয়েছে, আয়ের তুলনায় সম্পদের মোট মূল্য ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং দীর্ঘমেয়াদি ক্ষেত্রেও এই দাম বৃ্দ্ধিতে কোনও বদল হয়নি। যদিও মুদ্রাস্ফীতির মধ্যে এই মূল্য বৃ্দ্ধি নিয়ে যথেষ্ট প্রশ্ন রয়েছে।

ম্যাকিনসের হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বের মোট সম্পদের শতকরা ৬৮ ভাগই ব্যয় করা হয়েছে রিয়েল এস্টেট খাতে। এসব ব্যয় হয়েছে অবকাঠামো, মেশিনারিজ এবং বিভিন্ন সরঞ্জামে।


একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

বাতাস যখন ভয়ঙ্কর-২

বাতাস যখন ভয়ঙ্কর-২

২ দিন ২ ঘন্টা আগে