ঢাকা ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮

আন্তর্জাতিক মাদক পাচারে জড়িত শাহরুখপুত্র, এনসিবি

আফসানা হক, একাত্তর
প্রকাশ: ০৬ অক্টোবর ২০২১ ২২:৪২:৫৮ আপডেট: ০৬ অক্টোবর ২০২১ ২২:৫৪:৪২
আন্তর্জাতিক মাদক পাচারে জড়িত শাহরুখপুত্র, এনসিবি

ইন্ডিয়ান টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আরিয়ান খান ও অন্যান্য অভিযুক্তদের মোবাইল ফোনগুলো ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য গান্ধীনগরের একটি পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে। 

আদালতে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (এনসিবি) আইনজীবী দাবি করেছেন, আরিয়ান ও তার দুই বন্ধু আরবাজ ও মুনমুনের হোয়াটস অ্যাপ চ্যাট থেকে অপরাধমূলক তথ্য পাওয়া গেছে, যা আন্তর্জাতিক মাদক পাচারের সাথে সম্পর্কিত। তাদের সাথে বিদেশি মাদক পাচারকারীদের যোগাযোগের কথাও জানতে পেরেছেন গোয়েন্দারা। 

গোয়েন্দাদের আরও দাবি, মাদকের দাম কিভাবে দেওয়া হবে তা নিয়েও অসংখ্য চ্যাট রয়েছে শাহরুখ পুত্রের। এমনকি তারা বেশ কয়েকটি কোড নামও ব্যবহার করেছেন। 

জনপ্রিয় সেলিব্রিটি আইনজীবী অ্যাডভোকেট আশোক সারাগী বলেন, যদি এনসিবি'র তথ্য অনুযায়ী, হোয়াটস অ্যাপ চ্যাটটি তারা যেমন দাবি করে, তেমনই অপরাধমূলক হয়ে থাকে তাহলে আরিয়ান খান জামিন নাও পেতে পারেন ।

অন্যদিকে আরিয়ানের আইনজীবী শাতিস মানসিন্ডে জোরালোভাবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। জামিন শুনানিতে তিনি ম্যাজিস্ট্রেটকে বলেন, আরিয়ান খানকে জাহাজে ওঠার আগে দুইবার তল্লাসি করা হয়েছে। সেখানে কোন নিষিদ্ধ বস্তু মেলেনি। এমনকি তিনি যে মাদক সেবন করেছেন এমন কোন প্রমাণও নেই। 


সিনিয়র আইনজীবী হিতেশ যৌনের মতে, চ্যাটের ওপর নির্ভর করা একটি অনুমান মাত্র। ব্যক্তি দোষী কি না সে সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য যথেষ্ট নয়। দেখা যাচ্ছে যে, ব্যক্তিগতভাবে কোন নিষিদ্ধ জিনিস পাওয়াও যায়নি। তাই মামলাটি বিবেচনা করা যেতে পারে। 

জানা যায়, এনসিবি'র পক্ষ থেকে একটু পরপরই জেরা করা হচ্ছে আরিয়ান ও তার বন্ধুদের। তবে ফাঁকা সময়ে শাহরুখ পুত্র পড়ার জন্য বিজ্ঞানের বইও চাচ্ছিলো এনসিবি'র কাছে। 

এদিকে ইন্ডিয়ান টুডের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আরিয়ান কেবল বাড়ি থেকে কাপড় পাচ্ছে। কিন্তু তাকে খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে এনসিবি'র মেস থেকেই। অন্য কোন বিশেষ ব্যবস্থাও তাকে দেওয়া হয়নি। ছেলের জন্য মা গৌরি খান বার্গার নিয়ে গেলেও এনসিবি অফিসাররা সুরক্ষার কথা বিবেচনা করে তা ভিতরে নিয়ে যেতে দেননি। 

ছেলের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি চেয়ে এনসিবি'র কাছে অনুমতি চেয়েছেন শাহরুখ খান। যদিও সে অনুমতি মিলেছে কি না তা এখনও জানা যায়নি। তবে শাহরুখ খানের ম্যানেজার আরিয়ান খানকে এনসিবি'র কাস্টোডিতে দেখতে যান। 


এদিকে শাহরুখের ভক্তদের তার বাসভবনের মান্নাতের বাইরে একটি প্লেকার্ড লাগাতে দেখা গেছে। এছাড়া ভক্তরা মান্নাতের বাইরে সমর্থ বার্তাও ফেলে আসছেন। 

এদিকে শাহরুখ পুত্র গ্রেপ্তারের দিনই সেই রাতে কিং খানের বাড়ি গিয়েছিলেন বলিউডের ভাইজান খ্যাত সালমান খান। 

কিং খান শাহরুখকে সর্বশেষ বড় পর্দায় দেখা গিয়েছিলো ২০১৮ সালে জিরো সিনেমাতে, যা বক্স অফিসে খুব একটা সফলতা অর্জন করতে পারেনি। আগামী বছরে মুক্তি পেতে চলেছে তার ছবি পাঠান। মুম্বাইতে পাঠানের প্রথম পর্বের শুটিং শেষ হলেও আগামী দশ অক্টোবর থেকে স্পেনে শুরু হওয়ার কথা ছিলো পাঠানের দ্বিতীয় পর্বের শুটিং। কিন্তু আপাতত মাদক মামলায় আরিয়ান খানের গ্রেপ্তারের পর সব শুটিং বাতিল করেছেন কিং খান। 


প্রসঙ্গত, গত ৩ অক্টোবর মুম্বাই থেকে গোয়াগামী একটি প্রমোদতরীর মাদকপার্টিতে অংশ নেন শাহরুখপুত্র আরিয়ান খান। সেখান থেকে তাকে আটক করে ভারতের নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। বেশ কয়েক ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে গ্রেপ্তার দেখায় সংস্থাটি। 


একাত্তর/আরএইচ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন