ঢাকা ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

‘হামলাকারীরা এসেছিল সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ও রাজনৈতিক স্বার্থে’

নিজস্ব প্রতিনিধি, রংপুর
প্রকাশ: ২২ অক্টোবর ২০২১ ১৭:১৪:০৩ আপডেট: ২২ অক্টোবর ২০২১ ১৭:৩০:১৬
‘হামলাকারীরা এসেছিল সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ও রাজনৈতিক স্বার্থে’

হিন্দুধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে সারাদেশের ন্যায় হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছিলো রংপুরেও। জেলার পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার জানিয়েছেন, জেলায় গত ১৭ অক্টোবরের হামলায় মুহূর্তেই যোগ দিয়েছিল হাজার হাজার মানুষ। এদের মধ্যে কারো উদ্দেশ্য ছিল রাজনৈতির পরিস্থিতি সহিংস করা। আবার কেউ কেউ এসেছিল শুধুই সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ নিয়ে।

তিনি বলেন, এ ঘটনার সাথে জড়িত সকলকেই শাস্তি পেতে হবে। প্রথম দিন থেকেই ২৪ ঘণ্টা কাজ করছে পুলিশ।

রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, তাদের এই মুহূর্তের লক্ষ্য মাঝি পাড়ায় স্বস্তি ফিরিয়ে আনা। তবে খুব দ্রুত মাঠে নামছে প্রশাসন।

জেলা প্রশাসক আরো জানান, এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ৪০টি পরিবারের বসত ঘর বসবাসের উপযোগী হয়েছে। আগামী দু’এক দিনের মধ্যে সবার বসতঘর বসবাস উপযোগ হবে।

প্রসঙ্গত, রংপুর জেলার পীরগঞ্জে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘরে আগুন দেবার ঘটনা ঘটেছে রোববার (১৭ অক্টোবর) রাতে। হিন্দু ধর্মাবলম্বী এক তরুণ ফেসবুকে একটি পোষ্টে ‘ইসলাম বিদ্বেষী’ কমেন্ট করার কথিত অভিযোগে ১৮টির মতো ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলার সহকারী পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জামান।

রোববার রাত দশটার দিকে ওই ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। পরে দমকল বাহিনী আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আরও পড়ুন: গান গাইতে গিয়ে ধরা পড়ে ইকবাল

মো. কামরুজ্জামান জানিয়েছেন, ‘ভালবাসার প্রস্তাব’ নামে একটি ফেসবুক আইডির প্রোফাইল ফটোতে কাবা শরীফের ছবি ছিল। সেখানে ওই কমেন্ট করা হয়।

‘তবে এটা ফেক আইডি হবে বলে আমরা ধারণা করছি - নামেই বোঝা যায়। কিন্তু উত্তেজিত জনতা কিছু ঘরবাড়িতে আগুন দিয়েছে,’ বিবিসি বাংলাকে বলছেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।


একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন