ঢাকা ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

যুক্তরাজ্যে বাড়ছে সংক্রমণ, বিশেষজ্ঞরা বলছেন 'ধ্বংসাত্মক শীত'

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২২ অক্টোবর ২০২১ ২০:৪৫:১৫ আপডেট: ২২ অক্টোবর ২০২১ ২০:৫২:৫৫
যুক্তরাজ্যে বাড়ছে সংক্রমণ, বিশেষজ্ঞরা বলছেন 'ধ্বংসাত্মক শীত'

আবারও কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। দেশটিতে দ্রুত গতিতে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এরইমধ্যে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগকে আসন্ন 'ধ্বংসাত্মক শীত' পরিস্থিতি নিয়ে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসারা। 

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) দেশটিতে নতুন করে ৫২ হাজারের বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। যা গত ১৭ জুলাই এর পর সর্বোচ্চ দৈনিক শনাক্তের ঘটনা। খবর আল-জাজিরার।  

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভিদের বরাতে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ডয়েচে ভেলে জানিয়েছে, অদূর ভবিষ্যতেই দেশটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দৈনিক এক লাখে গিয়ে দাঁড়াতে পারে। 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ বলেছেন, আর কিছুদিনের মধ্যেই দিনে এক লাখ করে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন। তা সত্ত্বেও তিনি এখনই কড়াকড়ি চালু করার কথা বলছেন না। তবে বিভিন্ন মহল থেকে কড়াকড়ি আবার চালু করার দাবি উঠেছে।

তবে আশঙ্কা থাকলেও দেশটির সরকার মনে করছে, ভ্যাকসিন ও সুচিকিৎসার মাধ্যমে তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারবে বলে জানান সাজিদ। 

তিনি বলেছেন, ১৬ বছরের বেশি বয়সি, যারা এখনো ভ্যাকসিন নেননি। তারা যেন দ্রুত ভ্যাকসিন নিয়ে নেন। আর যারা ভ্যাকসিনের দুইটি ডোজ নিয়েছেন, তারা যেন বুস্টার ডোজ নেন। ব্রিটেনে এখনো ১৬ বছরের বেশি বয়সি ৫০ লাখ মানুষ ভ্যাকসিনের একটি ডোজও নেননি।

মানুষ ভ্যাকসিন না নিলে সরকার যে সব ছাড় দিয়েছে, তা প্রত্যাহার করতে হবে। শীত আসছে, তখন কড়াকড়ি করে করোনাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। যদি মানুষ ভ্যাকসিন না নেয়, বুস্টার ডোজ না নেয়, তাহলে করোনা আবার আমাদের সবাইকে আঘাত করবে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। 

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ।

এদিকে স্বস্তিতে নেই দেশটির চিকিৎসকরাও। করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় হাসপাতালগুলোর অবস্থা ক্রমশ খারাপের দিকে যাচ্ছে। 

চিকিৎসকরা বলছেন, করোনা রোগীর সংখ্যা অনেক বেড়েছে। তার সঙ্গে এই সময় অন্য ভাইরাসজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে রোগীরাও আসছেন। বাড়তি রোগীর চাপ হাসপাতালগুলো নিতে পারবে না।

আরও পড়ুন: চীনা হামলায় তাইওয়ানকে রক্ষার প্রতিশ্রুতি বাইডেনের

যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) এনএইচএস কনফেডারেশনের প্রধান ম্যাথিউ টেলার বলেছেন, অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে এসে পরিস্থিতি আবার ভয়ংকর হয়েছে। আর যদি চাপ বাড়ে তাহলে আমরা মানুষকে আর পরিষেবা দিতে পারবো না।

অক্টোবর মাসের শুরুর দিকে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বরিসন সরকার খুব খারাপভাবে করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলা করেছে।


একাত্তর/আরবিএস 

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন