ঢাকা ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

তিস্তার একদিনের ঢলেই বহুদিনের দুর্গতিতে মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক, একাত্তর
প্রকাশ: ২৩ অক্টোবর ২০২১ ১৮:১০:৪৪
তিস্তার একদিনের ঢলেই বহুদিনের দুর্গতিতে মানুষ

উত্তরের জেলাগুলোর বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলেও, নিচু এলাকা এখনো পানিতে ভাসছে। একদিনের ঢলে ভেসে গেছে ক্ষতিগ্রস্ত জেলার শতশত হেক্টরের জমির ভুট্টা, উঠতি আমন ধান, সবজি, পুকুরের মাছ ও বসতঘর। ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করে সরকারি ত্রাণসামগ্রী পৌঁছানোর কাজ করছে জেলা প্রশাসন। 

লালমনিরহাটে গেলো ১৯ অক্টোবর মধ্যরাতে আকস্মিক বন্যায়, তিস্তা ব্যারাজের ফ্লাড বাইপাস সড়ক ভেঙ্গে পানিতে ভেসে গেছে ফসলি জমি আর বসতভিটা। তবে এখন বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হলেও ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে ব্যাপক।

এক রাতেই পানির তোড়ে ভেসে গেছে ৯৩৬টি মাছের পুকুর ও ৩,৩৮০ হেক্টর জমির ধান, পিয়াজ, বাদাম, ভুট্টা সহ আগামজাতের আলু। এরই মধ্যে সরকারি বরাদ্দের সহায়তা করা হলেও অনেকেই অভিযোগ করেছেন তারা কিছুই পাননি। 

নীলফামারীর বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও, তিস্তা বাঁধসহ উচ্চ স্থানে এখনো তাবু ও পলিথিন টাঙ্গিয়ে চরম দুর্ভোগে রয়েছেন ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার কয়েকশ’ পরিবার। 

এদিকে তিস্তার পানি বইছে বিপদসীমার ৪০ সেন্টিমিটার নিচে। তবে একদিনের ঢলে ভেসে গেছে জেলার ডিমলা উপজেলার ১২টি চরের শতশত হেক্টরের জমির ভুট্টা, উঠতি আমন ধান, সবজি, পুকুরের মাছ, বসতঘর। 

কুড়িগ্রামে তিস্তা, ধরলা, ব্রক্ষ্মপুত্র, দুধকমারসহ সবগুলো নদ-নদীর পানি দুদিন ধরে কমলেও, বিভিন্ন পয়েন্টে শুরু হয়েছে তীব্র ভাঙন। একই সাথে নানান ভোগান্তি বেড়েছে মানুষের। ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে কয়েকশ হেক্টর জমির আমন ধান ও সবজি। 

অন্যদিকে গাইবান্ধায় উজান থেকে আসা ঢলে নদ-নদীগুলোর পানি বাড়লেও, দ্রুত পানি নেমে যাওয়ায় তেমন কোন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তিস্তার পানি বিপদসীমার ৭০ সেন্টিমিটার নিচে বইছে।



একাত্তর/এআর

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন